মন্দির রহস্য – রেন টেম্পল, উত্তর প্রদেশ

139

ভারতে যেমন মন্দিরের পরিমান অসংখ্য তেমনই তাদের নিয়ে রহস্যর ও কোনো শেষ নেই, আজ আপনাদের এমনই এক রহস্যময় মন্দিরের কথা বলবো যার রহস্য ভেদ করতে বিজ্ঞান ও হিমশিম খাচ্ছে|

উত্তর প্রদেশে কানপুরের রয়েছে এই অদ্ভুত দেখতে মন্দির। মন্দিরটি শ্রী জগন্নাথের।মানুষের বিশ্বাস, বৌদ্ধ মঠের আদলে এই মন্দির নাকি তৈরি করিয়েছিলেন সম্রাট অশোক|

যুগ যুগ ধরে এক অলৌকিক উপায়ে এই প্রাচীন মন্দিরটি সঠিক আবহাওয়ার খবর আগাম বলে দিচ্ছে স্থানীয়দের,বৃষ্টি পাতের আগাম খবরের জন্যে স্থানীয়রা অন্য কোনো প্রযুক্তি নয় ভরসা রাখেন এই মন্দিরে, শুধু বৃষ্টির খবর বলে দেওয়া নয়, বৃষ্টি হলেও কতটা হবে সেটাও নাকি বলে দেওয়ার ক্ষমতা রাখে এই রহস্যময় মন্দির। সেখানকার লোকেরা এই কারণেই মন্দিরটিকে ‘রেন টেম্পল’ নাম দিয়েছেন|যথার্থ নাম করণ সন্দেহ নেই|

স্থানীয় বাসিন্দারা বলেন, হঠাৎ করেই নাকি প্রখর রোদেও মন্দিরের ছাদ থেকে জল পড়তে থাকে এর অর্থ বৃষ্টি হবেই।প্রতিবার বৃষ্টি হওয়ার ৬-৭ দিন আগে থেকেই নাকি এমন অদ্ভুত সংকেত দেয় এই মন্দির। প্রবল বৃষ্টি হবে নাকি স্বল্প বৃষ্টি হবে, সেটাও নাকি জলবিন্দুর চুঁইয়ে পড়ার ধরণ দেখেই বোঝা যায়, রহস্য এখানেই শেষ নয়, বৃষ্টি শুরু হওয়ার পর এই মন্দিরের ছাদ থেকে যে জল চুঁইয়ে পড়ছিলো তা পুরোপুরি নাকি বন্ধ হয়ে যায়। শুধু তাই না, সিলিংয়ে জলের কোনো চিহ্নও থাকেনা,

বৃষ্টির আগাম খবর পাওয়া যায় তাই কৃষকদের কাছে এই মন্দির বেশ পবিত্র। কারণ বৃষ্টির পূর্বাভাস, তাদের চাষবাষে সাহায্য করে।প্রায় সারা বছরই দর্শনার্থীরা আসেন এখানে তবে রথযাত্রা উপলক্ষে উৎসব হয় ও সেই সময়ে বহু মানুষের সমাগম হয়, এই মন্দিরে|

আবার ফিরবো নতুন পর্বনিয়ে যথা সময়ে, পড়তে থাকুন আমার লেখা ও দেখতে থাকুন টিভির অনুষ্ঠান, আর জ্যোতিষ পরামর্শ ও প্রতিকারের জন্যে উল্লেখিত নাম্বারে ফোন করুন নির্দ্বিধায়|ভালো থাকুন|ধন্যবাদ|