Home Blog

নবদুর্গার দ্বিতীয় রূপ – দেবী ব্রহ্মচারিনী

আজ নবরাত্রি উপলক্ষে পূজিতা দেবী দুর্গার দ্বিতীয় রূপ নিয়ে আলোচনা করবো যথারীতি|নব রাত্রির দ্বিতীয় দিনে ব্রহ্মচারিনীর বেশে ধরা দেন মা|এখানে ‘ব্রহ্ম’ শব্দের অর্থ হল তপস্যা। ব্রহ্মচারিণী অর্থাৎ তপস্বীনি|ভগবান শঙ্করকে পতিরূপে লাভ করার জন্য দেবী পার্বতী কঠিন তপস্যা করেন। সেই কঠিন তপস্যার জন্য তাকে তপশ্চারিনী বা ব্রহ্মচারিণী বলা হয়|তপস্যা সার্থক হয় বিবাহ হয় দুজনের । পরে তাঁদের সন্তান কার্তিক বা ষড়ানন বধ করেন তারকাসুরকে।দেবীর ব্রহ্মচারিণীর রূপ জ্যোতিতে পূর্ণ, অতি মহিমামণ্ডিত। তিনি ডান হাতে জপের মালা এবং বাঁ হাতে কমণ্ডলু ধারণ করে আছেন।জ্যোতিষ শাস্ত্র মতে দেবী মঙ্গল গ্রহ শাসন করেন। প্রেম, আনুগত্য, প্রজ্ঞা এবং জ্ঞানের প্রতীক হিসেবেও তিনি পরিচিত। সাদা রঙ দেবীর প্রিয় তাই দেবী ব্রহ্মচারিনীর পুজোয় স্বেত চন্দন ও সাদা ফুল ব্যাবহার হয়|যারা দেবীর ব্রহ্মচারীনি রূপের পুজো করবেন তারা এই মন্ত্রটি জপ করতে পারেন|”ইয়া দেবী সর্বভূতেষু মা ব্রহ্মচারিণী রূপেন সংস্থিতা নমস্তস্যই নমস্তস্যৈ নমস্তস্যৈ নমো নমঃ |দধনা কারা পদ্মভ্যাম অক্ষমলা কামণ্ডালু | দেবী প্রসিদাতুরমণি মা |ওম দেবী শৈলপুত্রায় নমঃ ॥ ইয়া দেবী সর্ব ভূতেষু শক্তি রূপেন সংস্থিতাঃ নমস্তস্যৈ নমস্তস্যৈ নমস্তস্যৈ নমো নমহা ” শাস্ত্রে আছে এই রূপের পূজায় বৃদ্ধি পায় মনোসংযোগ এবং সব ভয় সংশয় ও মানসিক দুর্বলতা দূর হয়|নবরাত্রির দ্বিতীয় দিনে এই রূপের পুজো হয় সারা দেশে|বিশ্বাস করা হয় নবরাত্রির গুরুত্বপূর্ণ সময়ে জ্যোতিষ পরামর্শ ও প্রতিকারের জন্য অত্যান্ত শুভ সেই বিষয়ে আপনারা চাইলে যোগাযোগ করতে পারেন| আগামী দিনের পর্বে দেবীর অন্যরূপ নিয়ে ফিরে আসবো|পড়তে থাকুন|ভালো থাকুন|ধন্যবাদ|

নবদুর্গার প্রথম রূপ – দেবী শৈল পুত্রী

শুরু হয়ে গেছে দেবীপক্ষের|শাস্ত্র মতে প্রতিপদের শুরু হলো আজ|বাংলার দূর্গা পূজার পাশাপাশি একই সময়ে সারা দেশ জুড়ে পালিত হয় নব রাত্রি উৎসব|মূলত দেবী দুর্গার নয় টি ভিন্ন রূপের পূজা হয় নয় দিন ধরে| বাংলার অনেক দূর্গা পূজা তেও নব দুর্গার আরাধনা হয়|এই রূপ গুলির আছে নিজস্ব শাস্ত্রীয় ব্যাখ্যা এবং আধ্যাত্মিক তাৎপর্য|আজ বলবো প্রথম রূপ শৈল পুত্রী নিয়ে|প্রজাপতি দক্ষএকবার বিরাট যজ্ঞ করেন ।তার যজ্ঞে সতী কে নিমন্ত্রণ করা হয়নি । সতী পিতৃ গৃহে যাবার জন্য অস্থির হলেন কিন্তু ভগবান শঙ্কর সাবধান করলেন যে কোন কারনে তিনি উমার উপর রেগে আছেন । কিন্তু সতীর মন মানল না তখন শঙ্কর জী অনুমতি দিলেন যাবার জন্য । কিন্তু পিতৃ গৃহে গিয়ে পৌঁছে দেখলেন কেউ তাকে সেরকম স্নেহ ভরে কাছে ডাকছে না । একমাত্র মা জড়িয়ে ধরলেন । স্বয়ং দক্ষ তাকে নানা খারাপ কথা বললেন । তখন রাগে দুঃখে যজ্ঞাগ্নির সাহায্যে নিজে কে ভস্মীভূত করলেন ।সতীর এই পরিনতির সংবাদ শুনে শিব ও তার অনুগামীরা প্রচন্ড ক্রোধে দক্ষের যজ্ঞ ধ্বংস করলেন|পর জন্মে দেবী সতী শৈলরাজ হিমালয়ের কন্যা রুপে জন্ম নিলেন| শৈলরাজ হিমালয়ের কন্যা হবার জন্য দেবীর এক নাম হয় শৈলপুত্র এবং এই জন্মে তিনিই পার্বতী রূপে শিবের অর্ধাঙ্গিনী হলেন|নবরাত্রি উৎসবের প্রথমদিনের পুজো হয় দেবী শৈলপুত্রীর। দেবী শৈলপুত্রী আসলে প্রকৃতির দেবী। শৈলপুত্রীর বাহন বৃষ । এঁনার দক্ষিণ হস্তে ত্রিশূল আর বাম হস্তে কমল আছে তাই দেবীর অপর নাম শুলধারিনি|আবার তাকে দেবী হৈমবতী বলে ডাকা হয়|শাস্ত্র অনুযায়ী ব্রহ্মার শক্তির প্রতীক হলেন দেবী শৈলপুত্রী কারন একবার দেব ও অসুরের যুদ্ধে ব্রহ্ম দেবতাদের জয়ী করেছিলেন। কিন্তু ব্রহ্মের শক্তিকে ভুলে দেবতারা জয়ের গৌরব নিজেরাই নিতে উদ্যত হলেন। ব্রহ্ম তখন নিজে এলেন দেবতাদের দর্পচূর্ণ করতে। তিনি একখণ্ড তৃণ রাখলেন দেবতাদের সম্মুখে। কিন্তু দেবতারা আশ্চর্য হয়ে দেখলেন, অগ্নি সেই তৃণখণ্ডটি দহন করতে বা বায়ু তা একচুল পরিমাণ স্থানান্তরিত করতে অসমর্থ হলেন। তখন ইন্দ্র এলেন সেই জ্যোতির্ময় ব্রহ্মকে জানতে। ব্রহ্ম অন্তর্হিত হলেন। ব্রহ্মশক্তি শৈলপুত্রীর রূপ ধারন করলেন|দেবী শৈলপুত্রী সম্পর্কে বর্ণিত আছে কালিকা পুরাণে|শাস্ত্র মতে এই রূপের আরাধনায় বৃদ্ধি পায় মনোবল|মানসিক অস্থিরতা ও অবসাদ মুক্তি হয় দেবী শৈল পুত্রীর আরাধনায়|ধারাবাহিক ভাবে চলবে ওই আলোচনা|আগামী পর্বে দেবীর পরবর্তী রূপ নিয়ে আলোচনা করবো |পড়তে থাকুন|ভালো থাকুন|ধন্যবাদ|

মহালয়ার তিথির আধ্যাত্মিক ও পৌরাণিক ব্যাখ্যা

আজ পঞ্জিকা মতে পিতৃ পক্ষের অবসান হয়ে দেবী পক্ষের সূচনা, অর্থাৎ মহালয়া তিথি, মহাভারত অনুযায়ী, প্রসিদ্ধ দাতা কর্ণের মৃত্যু হলে তার আত্মা স্বর্গে গমন করলে, তাকে স্বর্ণ ও রত্ন খাদ্য হিসেবে প্রদান করা হয়। কর্ণ ইন্দ্রকে এর কারণ জিজ্ঞাসা করলে ইন্দ্র বলেন, কর্ণ সারা জীবন স্বর্ণই দান করেছেন, তিনি পিতৃগণের উদ্দেশ্যে কোনোদিন খাদ্য প্রদান করেননি। তাই স্বর্গে তাকে স্বর্ণই খাদ্য হিসেবে প্রদান করা হয়েছে। কর্ণ বলেন, তিনি যেহেতু তার পিতৃগণের সম্পর্কে অবহিত ছিলেন না, তাই তিনি ইচ্ছাকৃতভাবে পিতৃগণকে স্বর্ণ প্রদান করেননি। এই কারণে কর্ণকে ষোলো দিনের জন্য মর্ত্যে গিয়ে পিতৃলোকের উদ্দেশ্যে অন্ন ও জল প্রদান করার অনুমতি দেওয়া হয়। এই পক্ষই পিতৃপক্ষ নামে পরিচিত হয়। হিন্দু পূরাণ অনুযায়ী, জীবিত ব্যক্তির পূর্বের তিন পুরুষ পর্যন্ত পিতৃলোকে বাস করেন। এই লোক স্বর্গ ও মর্ত্যের মাঝামাঝি স্থানে অবস্থিত। পিতৃলোকের শাসক মৃত্যুদেবতা যম। তিনিই সদ্যমৃত ব্যক্তির আত্মাকে মর্ত্য থেকে পিতৃলোকে নিয়ে যান। পরবর্তী প্রজন্মের একজনের মৃত্যু হলে পূর্ববর্তী প্রজন্মের একজন পিতৃলোক ছেড়ে স্বর্গে গমন করেন এবং পরমাত্মায় লীন হন এবং এই প্রক্রিয়ায় তিনি শ্রাদ্ধানুষ্ঠানের ঊর্ধ্বে উঠে যান। এই কারণে, কেবলমাত্র জীবিত ব্যক্তির পূর্ববর্তী তিন প্রজন্মেরই শ্রাদ্ধানুষ্ঠান হয়ে থাকে; এবং এই শ্রাদ্ধানুষ্ঠানে যম একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন।পিতৃগণের অবস্থানের প্রথম পক্ষে হিন্দুদের পিতৃপুরুষগণের উদ্দেশ্যে তর্পণাদি করতে হয়|এই তর্পনের শাস্ত্র সম্মত তিথি হলো মহালয়া তিথি| জ্যোতিষ শাস্ত্র অনুসারে অনুযায়ী, সূর্য কন্যারাশিতে প্রবেশ করলে পিতৃপক্ষ সূচিত হয়। লোকবিশ্বাস অনুযায়ী, এই সময় পূর্বপুরুষগণ পিতৃলোক পরিত্যাগ করে তাদের উত্তরপুরুষদের গৃহে অবস্থান করেন। এর পর সূর্য বৃশ্চিক রাশিতে প্রবেশ করলে, তারা পুনরায় পিতৃলোকে ফিরে যান। বাংলায় মহালয়ার দিন দুর্গাপূজার সূচনা হয়। লোকবিশ্বাস অনুযায়ী, এই দিন দেবী দুর্গা মর্ত্যলোকে আবির্ভূতা হন। মহালয়ার ভোরে চণ্ডীপাঠ করার রীতি রয়েছে। বাঙালির মহালয়ার ভোর মানে টাই রেডিওতে বীরেন্দ্র কৃষ্ণ ভদ্রর কণ্ঠে চন্ডী পাঠ ও মহিষাসুর মর্দিনী অনুষ্ঠান| প্রতি বছরের ন্যায় এবছরও আপনাদের মা হৃদয়েশ্বরী সর্বমঙ্গলা মায়ের মন্দিরে বিশেষ পুজো ও হোম যজ্ঞর আয়োজন করা হয়েছে|আপনারা সশরীরে অথবা সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে অংশ নিতে পারেন|শাস্ত্র মেনে মহালয়া তিথি পালন করুন|মা হৃদয়েশ্বরী সর্বমঙ্গলার কৃপায় আপনারা ভালো থাকুন|ধন্যবাদ|

বাংলার ঐতিহাসিক পুজো – হরিপালের বোম ফাটানো পুজো

আজ আপনাদের ৪০০ বছরেরও বেশি পুরনো হরিপালের ‘বাবুর বাড়ি’-র দুর্গা পুজো নিয়ে বলবো হ্যাঁ ” বাবুর বাড়ির পুজো ” নামেই খ্যাত হুগলীর হরিপালের এই বিখ্যাত ও ঐতিহাসিক দূর্গা পুজো|ব্যাতিক্রমী একটি প্রথা এখানে আজও নিষ্ঠার সঙ্গে পালন করা হয়|বিশেষ মুহুর্তে পরিবারের সবচেয়ে বয়োজ্যেষ্ঠ সদস‍্য , বাড়ির সবচেয়ে বয়োজ্যেষ্ঠা মহিলাদের থেকে গিয়ে অনুমতি নেন আরতি আরম্ভ করার। অনুমতি মেলার সঙ্গে সঙ্গে একটি বোমা ফাটানো হয়। তারপরেই বয়োজ্যেষ্ঠ সদস‍্য “মা” বলে ডেকে ওঠেন, সঙ্গে সঙ্গে উপস্থিত পরিবারের অন্যান্য সদস্যরাও “মা” বলে ডাক দেন। আর অমনি এই সময়ে এক সাথে “মা” দুর্গা এবং রাধা গোবিন্দের আরতি শুরু করেন দুই পুরোহিত। ৪০০ বছরে এই রীতির পরিবর্তন হয়নি|স্থানীয় ইতিহাস ঘাটলে জানা যায় আনুমানিক ৫০০ বছর আগে রাসবিহারী ভট্টাচার্য্য হরিপালেরএই গ্রামে এসে জমিদারি প্রতিষ্ঠা করেন। সেই সময় প্রত্যেক বছর অঘ্রাণ মাস ধরে কাত‍্যায়নি পুজো হতো জমিদার বাড়িতে। রাজবিহারী ভট্টাচার্য্যের পুত্র কৃষ্ণনাথ ভট্টাচার্য্য একানিষ্ঠ গোবিন্দ ভক্ত ছিলেন। তিনি একদা বৃন্দাবনে গোবিন্দ দর্শনে বার হলে পথে স্বপ্নাদেশ পান বৃন্দাবনে নয়, জয়পুরে অধিষ্ঠিত আছেন গোবিন্দ। সেখান থেকে গোবিন্দের মূর্তি নিয়ে এসে গজা গ্রামে প্রতিষ্ঠা করেন কৃষ্ণনাথ ভট্টাচার্য্য। তারপর থেকেই কাত‍্যায়নি পূজো বন্ধ হয়ে মা দুর্গার পূজা চালু হয় ভট্টাচার্য্য বাড়িতে যেটি বর্তমানে “বাবুর বাড়ি” নামে খ‍্যাত।জন্মাষ্টমীর দিন কাঠামো পূজার মাধ্যমে ” বাবুর বাড়ি” র দুর্গাপুজো শুরু হয়। এক চালচিত্রের মধ্যেই একই বংশের পটুয়ারা বাবুর বাড়িতে এসে প্রতিমা নির্মাণের কাজ করেন। পুজোর চারদিন দূর্গা দালানে মা দুর্গার পাশে বিরাজমান থাকেন রাধা গোবিন্দ । এবং রাধা গোবিন্দের সাথে মা দুর্গার একসাথে আরাধনা চলে পুজোর চারদিন। দুটি পুরোহিত একসঙ্গে দুটি পুজোর রীতিনীতির কাজ সম্পন্ন করেন নিষ্ঠাভরে।। সপ্তমী, অষ্ঠমী, নবমীতে রাধা-গোবিন্দকে প্রথমে উৎসর্গ করা ভোগ। সেই ভোগের একটা অংশ চলে যায় মা দুর্গার কাছে। সঙ্গে আরও অন্য ভোগ দিয়ে মা দুর্গাকে ভোগ নিবেদন করা হয়। প্রাচীন এই রীতির পরিবর্তন হয়নি আজ ও। দশমীতে বিসর্জনের আগের মুহুর্তে রাধাগোবিন্দ ফিরে যান তাঁর নিজ স্থানে। হুগলী জেলার প্রাচীনতম পুজো “বাবুর বাড়ি” পুজো এই বাড়ির ঠাকুর বিসর্জনের পরেই গ্ৰামের অন‍্যান‍্য বাড়ি ও এলাকার অন‍্যান‍্য পুজা কমিটির প্রতিমা বিসর্জন হয়।বাকি রইলো আরো অনেক ঐতিহাসিক পুজো নিয়ে বলা|আগামী দিনে দুর্গাপূজা সংক্রান্ত আরো অনেক ইতিহাস, গল্প ও শাস্ত্রীয় ব্যাখ্যা নিয়ে ফিরে আসবো|পড়তে থাকুন|ভালো থাকুন|ধন্যবাদ|

বাংলার ঐতিহাসিক পুজো – শতাব্দী প্রাচীন লাহা বাড়ির দূর্গা পুজো

বাংলা তথা কলকাতার ঐতিহাসিক দূর্গা পুজো গুলির মধ্যে লাহা বাড়ির পুজো অন্যতম|আজকের পর্বে লাহা বাড়ির এই দূর্গা পুজো নিয়ে লিখবো |ঐতিহাসিক এই লাহা বাড়ির ইতিহাস বেশ প্রাচীন তাদের এবং দূর্গা পুজো নিয়ে প্রচলিত আছে বহু বহু গল্প বহু অদ্ভুত রীতি|মনে করা হয় বর্ধমানের বড়শূলে প্রথম পুজো শুরু করেন বনমালী লাহা|পরবর্তীতে কলকাতায় এই পুজো শুরু করেন দুর্গাচরণ লাহা|এ বাড়ির পুজোর এমন কিছু বৈশিষ্ট আছে যা আর বেশ অদ্ভুত এবং আর কথাও চোখে পড়েনা|লাহা বাড়ির কুল দেবতা সিংহ বাহিনী এবং দূর্গা পুজোর সময়ের দেবী দূর্গা সিংহ বাহিনী একই সাথে পূজিতা হন|সিংহ বাহিনী কি করে এবাড়ির কুলদেবী হলো সে নিয়েও একটি অলৌকিক ঘটনা আছে|শোনা যায় কোনো এক সময় নাকি দেবীর এই মূর্তি কোন এক গভীর জঙ্গলে ডাকাতদের হাতে লাঞ্ছিত হয়ে অনাদরে অযত্নে পড়ে ছিল এই বাড়িরই এক সদস্য দেবীর কাছে স্বপ্নাদেশ মেয়ে মূর্তি উদ্ধার করতে গিয়ে দেখেন, দেবী বড় বিপন্ন। তিনি যত্নে দেবীকে তুলে নিয়ে এসে কুলদেবী রূপে পুজো করতে শুরু করেন|সেই থেকেই অষ্ট ধাতুর সেই মূর্তি কুল দেবী রূপে এবাড়িতে প্রতিষ্ঠিত|শোনা যায় ওই ঘটনার পর থেকে লাহাদের ব্যাপক উন্নত হয়|পরবর্তীতে শিবচরণ লাহা ইংরেজদের সঙ্গে পেন খাতাপত্র এবং মূল্যবান রত্নের ব্যবসা করে প্রচুর অর্থ উপার্জন করেছিলেন। পুজোর জাঁকজমকও বাড়ে এই সময়|এই বাড়ির পুজো হয়ে ওঠে কলকাতার বনেদি বাড়ির বড়ো পুজোগুলোর একটা|লাহা বাড়িতে দেবী দুর্গার রূপ অন্যরকম |তিনি এখানে হরপার্বতী রূপের পূজিতা হন|লাহা বাড়ির পুজো হয় বৈষ্ণব মতে।শিবের কোলে দেবী দুর্গা উপবিষ্টা|মহিষাসুর থাকেনা, দেবীর হাতে কোনো অস্ত্রও থাকেনা|লাহাবাড়ির পুজোর রীতিও একটু আলাদা লাহাবাড়িতে কাঠামো পুজো হয় জন্মাষ্টমীর দুই তিন পড়ে এবং দেবীপক্ষের শুরুতে বোধন হয়|প্রথা মেনে এখানে অন্ন ভোগ হয় না এখানে ভোগের বিশেষত্ব নানা ধরণের মিষ্টি|এখনো বলী প্রথা পুরো পুরি লুপ্ত হয়নি তবে প্রাণী হত্যা হয়না|বলী হয় কুমড়ো বা শসা|বিসর্জন ঘিরেও এবাড়িতে রয়েছে এক অদ্ভুত প্রথা বিসর্জন দিয়ে ফিরে বাড়ির পুরুষরা জিজ্ঞাসা করেন, ‘মা আছেন ঘরে’ ? তখন বাড়ির কোনও মহিলা ভিতর থেকে উত্তর দেন, ‘হ্যাঁ মা আছেন।‘ বাইরে থেকে ফের জিজ্ঞাসা করা হয় ‘মা আছেন ঘরে ?’ একই উত্তর দেওয়া হয় ভিতর থেকে। এভাবে পরপর তিনবার জিজ্ঞাসা করার পর সবাই ভেতরে প্রবেশ করে|আগামী দিনে দুর্গাপূজা সংক্রান্ত আরো অনেক ইতিহাস, গল্প ও শাস্ত্রীয় ব্যাখ্যা নিয়ে ফিরে আসবো|পড়তে থাকুন|ভালো থাকুন|ধন্যবাদ|

বাংলার ঐতিহাসিক দূর্গা পুজো -শোভা বাজার রাজবাড়ির পুজো

বাংলার দুর্গাপূজার নিজস্ব এক ইতিহাস এবং ঐতিহ্য আছে যা কয়েকশো বছরের পুরোনো|পলাশীর যুদ্ধ থেকে, স্বদেশী আন্দোলন, দেশ ভাগ থেকে ব্রিটিশ সাম্রাজ্যবাদ সবই এই ইতিহাসের অঙ্গ|দূর্গা পুজোকে কেন্দ্র করে শাস্ত্র এবং ধর্মীয় ভাবাবেগের পাশাপাশি এই ইতিহাসের ও এক আলাদা তাৎপর্য আছে|এই বনেদি বাড়ির দূর্গা পুজো নিয়ে লিখতে আলোচনায় সেই ইতিহাস সেই ঐতিহ্য কেই কিছুটা নতুন করে আপনাদের সামনে তুলে ধরছি|আজকের পর্বে ঐতিহাসিক শোভাবাজার রাজ বাড়ির পুজো|বাংলার বনেদি বাড়ির পুজো ঐতিহাসিক পুজোর মধ্যে শোভাবাজার রাজবাড়ীর পুজো থাকবে একদম প্রথম শাড়িতে|সেকালে বলা হতো দেবী মর্তে থাকাকালীন তার মনোরঞ্জনের জন্য এই বাড়িতেই আসতেন|এমন ভাবনার পেছনে অনেক কারন আছে|তবে আগে এই বাড়ি ও তার ইতিহাস সংক্ষেপে জেনে নেয়া দরকার|যদিও এই পরিবারের প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন বিজয় হরি দেব তবে এই পরিবারের স্বর্ণযুগ বলা হয় রাজা নবকৃষ্ণ দেবের সময় কে এবং তার আমলেই শুরু হয় এই দূর্গা পূজা|নব কৃষ্ণদেব ছিলেন ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির একজন সাধারণ কর্মচারী যিনি নিজের দক্ষতায় ও পরিশ্রমে কোম্পানির মুন্সী হয়ে ছিলেন|পলাশীর যুদ্ধে তিনি নানা ভাবে ক্লাইভ কে সাহায্য করেন ও পুরুস্কার স্বরূপ প্রচুর অর্থ লাভ করেন|মূলত পলাশীর যুদ্ধ জয় কে স্মরণীয় করে রাখতেই নবকৃষ্ণ দেবে দূর্গা পুজো শুরু করেছিলেন তাছাড়াও তার উদেশ্য ছিলো ক্লাইভ কে খুশি করে নিজের ক্ষমতা বৃদ্ধি করা|এই উদ্দেশ্যে তিনি সফল হয়েছিলেন|তার দূর্গা পুজোয় অংশগ্রহণ করেছিলেন স্বয়ং লর্ড ক্লাইভ|আজও অনেক জায়গায় এই পুজো কে গোরা দের পুজো বা কোম্পানির পুজো বলা হয়|উদেশ্য যাই থাকুক নিষ্ঠা সহকারে পুজো করতেন নবকৃষ্ণ দেব|প্রচুর অর্থ ব্যায় হতো এই পরিবারের দূর্গা পুজোয়|বসতো গান বাজনার আসর, নাচ, কবি গানের ও ব্যবস্থা থাকতো|দূর্গা পুজো উপলক্ষে অ্যান্টনি ফিরিঙ্গি, ভোলা ময়রার মতো কবিয়ালরা এখানে এসেছেন কবির লড়াই করতে আবার গহরজান, মালকাজান, নুর বক্স প্রমুখ নামী নর্তকী এই বাড়িতে এসেছেন নাচ করতে|সব মিলিয়ে এলাহী আয়োজন হতো শোভাবাজার রাজ বাড়ির দূর্গা পুজোয় আর এই কারণেই মনে করা হতো যে এটা মর্তে দেবী দুর্গার মনোরঞ্জনের স্থান|পরবর্তীতে দুই শরিকের মধ্যে ভাগ হয়ে যায় সম্পত্তি তবে প্রথা মেনে নিষ্ঠা সহকারে আজও শোভাবাজর রাজবাড়ি তে দূর্গা পূজা হয়|উল্টো রথের দিন কাঠামো পুজো দিয়ে শুরু হয় দেবীমূর্তি তৈরির কাজ|শোভাবাজার রাজবাড়ির মাতৃমূর্তির বিশেষ এক বৈশিষ্ট্য রয়েছে। এছাড়া, এখানকার পুজোর উপাচারও বেশ চমকপ্রদ। সন্ধিপুজোতে কামানের গোলার শব্দে শুরু হত পুজো এবং শেষও হত একই ভাবে|মা দুর্গা এই বাড়িতে বৈষ্ণবী হিসেবে পূজিতা হন। তাই শোভাবাজার রাজবাড়ির পুজোয় অন্নভোগ থাকে না। গোটা ফল, গোটা আনাজ, শুকনো চাল, কচুরি, খাজা, গজা, মতিচুর-সহ নানা ধরনের মিষ্টি দেবীকে উত্সর্গ করা হয়|বর্তমানে এখানে বলী প্রথা নেই|এবাড়ির পুজোয়|প্রতিমার সামনে একটা বড় হাড়িতে জল রাখা হয়। সেই জলে দেবীর পায়ের প্রতিবম্বের ছবি দেখে সবাই প্রণাম করে। একে দর্পণ বিসর্জন বলা হয়|তারপর প্রথা মেনে দশমীর দিনই হয় বিসর্জন|আগে নীলকণ্ঠ পাখি ওড়ানোর রীতি থাকলেও সরকারি নিয়মে তা এখন বন্ধ|যারা মহালয়া অমাবস্যা উপলক্ষে বিশেষ যজ্ঞ ও পরবর্তীতে দুর্গাপূজায় আপনাদের মা হৃদয়েশ্বরী সর্বমঙ্গলা মায়ের পুজোর সাথে যুক্ত হতে চান যোগাযোগ করতে পারেন|আগামী পর্বে আবার ঐতিহাসিক পুজোর কথা নিয়ে ফিরবো|পড়তে থাকুন|ভালো থাকুন|ধন্যবাদ|

বাংলার ঐতিহাসিক পুজো – বর্ধমানের জোড়া দূর্গা পুজো

আজ আপনাদের এমন এক দূর্গা পুজোর কথা বলবো যেখানে একটি নয় একসাথে দুটি দূর্গার পুজো হয়|বর্ধমানের গলসির রায়চৌধুরী বাড়িতে বসে জোড়া দুর্গা পুজোর আসর|মনে করা হয় জোড়া দূর্গা পুজোর কিছু ইতিহাস রয়েছে তবে তা ওই প্রাচীন রায় চৌধুরী পরিবারের বর্তমান সদস্য দের অজানা। তবুও নিষ্ঠাভরে বংশপরম্পরায় চলে আসছে একই বাড়িতে দুই মন্দিরে দুই দুর্গার পুজো।আজও নিয়ম মেনে একই সময়ে পৃথক পণ্ডিত দিয়ে একই মন্ত্র উচ্চারণ করে পাশাপাশি পূজিত হন|প্রতিবছর পুজোর সময়ে দুটি দুর্গা মূর্তি একসঙ্গে সেজে ওঠে। সমস্ত সাজ সম্পন্ন হওয়ার পর এক অনবদ্য রূপ ধারন করে দুর্গা মন্দির ও দুর্গা প্রতিমা। যেখানে মন্দিরটি রয়েছে সেটি একটি মেঝের মধ্যে। এক ছাদের নীচে রয়েছে দুটি মন্দির যার মধ্যে কেবল রয়েছে একটি দেওয়াল।জোড়া দুর্গামন্দিরের জোড়া দুর্গা পুজো প্রায় ১৫০-৩০০ বছরের প্রাচীন বলে মনে করা হয়।তবে বর্তমান প্রজন্মের কেউও পুজো শুরুর সঠিক সময় জানেন না|রায়চৌধুরী বাড়ির মায়ের নির্মাণে রয়েছে বিশেষত্ব। দুর্গা প্রতিমা একচালার। একটি পুজো বাড়ির চার ভাইয়ের পরিবার করে আর আরেকটি পুজো ১৬ টি পরিবারের সদস্যরা ও গ্রামের সকলে মিলে পুজো করেন।দুটি পুজোই ষষ্ঠীর দিন থেকে পঞ্জিকা মেনে হয়। তবে বাড়িতে পুজোর আমেজ এসে যায় মহালয়ার দিন থেকেই। কলাবউ স্নান হয় পাশের থাকা পুকুরে। সেখান থেকেই শুরু হয় পুজোর নিয়মাবলী। কলাবউকে নিয়ে আসাকে রায়চৌধুরী পরিবারের সকলের ‘দোলা’ আনতে যাওয়া বলে থাকেন। পরিবারের দুই ছেলে সেটিকে বহন করে থাকেন এবং বাকি বয়স্করা বাকি কাজ করেন।জোড়া দূর্গা পুজোয় দেওয়া হয় ছাগলের বলি। শোনা যায় এই বলি প্রথা বন্ধ করার চেষ্টা হয়ে ছিলো ২০২০ সালে, কিন্তু বলি বন্ধ করার কথা ভাবতেই ঘটে যায় এক অবিশ্বাস্য ঘটনা।সেবার ছাগ বলির সময় খাঁড়া ঘুরে যায় এবং যেখানে একবরে বলি হয় সেখানে তিন বারের চেষ্টাতে বলি সম্পন্ন করতে হয়|সেই থেকে পুজোর প্রাচীন রীতি নীতি তে আর কোনো পরিবর্তন আনার কথা ভাবা হয়নি|বাংলার প্রাচীন ঐতিহাসিক পুজোর সংখ্যা অনেক তাই দূর্গা পুজো উপলক্ষে চলতে থাকবে এই বিশেষ পর্ব গুলি ধারাবাহিক ভাবে|পড়তে থাকুন|ভালো থাকুন|ধন্যবাদ|

বাংলার ঐতিহাসিক পুজো – রাজা মান সিংহের আরাধ্যা দেবী

বাংলায় বারোয়ারী দূর্গা পুজোর সূচনা হয়েছিলো অনেক পরে প্রথমে দূর্গাপুজা শুরু হয় রাজ, জমিদার বা অভিযাত ব্যাবসায়ীদের বাড়িতে|তাই ঐতিহাসিক পুজো গুলির মধ্যে বেশি ভাগই প্রাচীন এই বনেদি বাড়ির পুজো|শুধু কলকাতায় নয় জেলার বহু পুজোর সাথে জড়িয়ে আছে বহু গল্প বহু ইতিহাস|এমনই এক পুজো বীরভূমে কীর্ণাহার এর ৩৫০ বছরের প্রাচীন দুর্গাপুজো|রাজা মান সিংহ এই পরিবারকে বীরভূমে জায়গীর প্রদান করেন। এবং তিনিই এই ‘সরকার’ উপাধিতে ভূষিত করেন।প্রাচীন এই জমিদার বাড়ির পুজোতে শুরুর দিন থেকে আজ পর্যন্ত একই রীতি চলছে|প্রতিপদ, দ্বিতীয়া এবং তৃতীয়ায় ৪০ কেজি চালের ভোগ দেওয়া হয়। এরপর চতুর্থী, পঞ্চমী এবং ষষ্ঠীতে ৬০ কেজি চালের ভোগ রান্না হয়। আর সবশেষে সপ্তমী, অষ্টমী এবং নবমী ৭০ কেজি থেকে ১ কুইন্টাল চালের ভোগ হয়।দেবী প্রতিমাতেও বিশেষত্ব আছে|সরকার বাড়ির দুর্গা দশভুজা হলেও তাঁর দুটি হাত বেশি বড়, বাকি ৮ হাত ছোট। তাছাড়া একমাত্র কার্তিকের ময়ূর ছাড়া আর কোনও বাহনকে দেখা যায় না। এমনকি দেবীর বাহন সিংহ-ও নেই, বদলে থাকে নরসিংহ। পুজোতে বলির প্রথা প্রচলিত। ছাগবলি এবং কুমড়ো বলি, দু’রকম বলি-ই হয়।পাশাপাশি দেবীর উদ্দেশ্যে মাছভোগ-ও নিবেদন করা হয়|রাজা মান সিংহের আরাধ্যা জগদ্ধাত্রী প্রতিষ্ঠিত এই বাড়িতে, আর তিনিই সরকারদের কুলদেবী।দুর্গাপুজো ঠিক বাড়ির ভেতরে হয় না‌। সামনেই একটি চণ্ডীমণ্ডপ, সেখানে হয়।রাজা মান সিংহের আরাধ্যা দেবী এই বাড়ির পুজোকে নিঃসন্দেহে ঐতিহাসিক ভাবে অন্য গুরুত্ব প্রদান করে আসছে|দশমীর বিসর্জনেও রয়েছে এক অদ্ভুত ও মজার রীতি রীতি। শোনা যায় বিসর্জনের আগে দেবীকে বহন করে নিয়ে যান এলাকার তথাকথিত নিন্ম বর্গের একটি বিশেষ জাতীর মানুষজন এবং তারা নাকি এ সময় নানা কুকথা বলতে থাকেন সরকার বাড়ির সদস্যদের উদ্দেশ্যে। কারন তারা এককালে জমিদারের প্রজা ছিলেন এবংঅতীতের জমিদারি প্রথার বিরোধিতা করতেই ক্ষোভে ফেটে পড়েন তারা । মজার বিষয় হল, বিসর্জন হয়ে যেতেই এরা রাতারাতি আমূল বদলে যান। সরকার বাড়ির সদস্যদের কাছে তারা ক্ষমা চান ও সৌজন্য বিনিময় করেন|জমিদার বাড়ির সদস্যরাও তাদের হাসি মুখে ক্ষমা করে দেন|বাংলার প্রাচীন ও ঐতিহাসিক এই পুজোয় মাইকেল মধুসূদন দত্ত, বিদ্যাসাগর, মহর্ষি দেবেন্দ্রনাথ ঠাকুরের মতো মনীষীরা এসেছেন । শোনা যায় এই বাড়িতে সাধক বামাক্ষ্যাপা-ও এসেছিলেন|বাংলার ঐতিহাসিক পুজো সংক্রান্ত আরো অনেক তথ্য নিয়ে ফিরে আসবো আগামী পর্বে|পড়তে থাকুন|ভালো থাকুন|ধন্যবাদ|

রানী রাসমনীর বাড়ির পুজো ও ঠাকুর রামকৃষ্ণদেব

কলকাতার ঐতিহাসিক বা জমি দার বাড়ির পুজো গুলির কথা লিখতে গেলে সাধারণত দূর্গা পুজোর জাঁকজমক বা জৌলুস এবং আড়ম্বরের কথাই বেশি লিখতে হয়|কারন সেকালের এই পরিবার গুলোর মধ্যে দূর্গা পুজোকে ঘিরে এক ধরণের রেষারেষি বা প্রতিযোগিতা চলতো, যদিও ভক্তি বা নিষ্ঠার অভাব ছিলো না|তবে এই রাজবাড়ি বা জমিদার বাড়ির পূজা গুলির মধ্যে একটি পরিবার ছিলো যারা বাহ্যিক জাঁকজমক থেকে নিষ্ঠা, সারল্য ও শাস্ত্রীয় আচরণকে বেশি গুরুত্ব দিতো|এই পুজো হতো কলকাতার জান বাজারের রানী রাশমনির পরিবারে|রানী রাসমণনীর বাড়ির পুজোর সাথে জড়িত আছে ঠাকুর রামকৃষ্ণ দেবের নাম, রয়েছে অনেক গল্প|আজকের পর্বে রানী রাসমণির পরিবারের পুজো নিয়ে লিখবো|এই বাড়িতে দূর্গা পুজোর সূচনা করেন এই বংশের প্রাণপুরুষ ও রানী রাসমণির শশুর মশাই শ্রী প্রীতরাম দাস|তার পর পুজোর দায়িত্ব গ্রহণ করেন পুত্র রাজেন্দ্র দাস এবং স্বামীর অবর্তমানে এই পরিবারের জমিদারি, ব্যবসা এবং দুর্গাপূজার দায়িত্বে আসেন রানী রাসমণি ও তার আমলে পুজোর শ্রী আরও বাড়ল|মনে করা হয় সেই সময়েই পুজোয় খরচ হত ৪০ থেকে ৫০ হাজার টাকা|একবার বাবুঘাটে কলা বৌ স্নান করাতে যাওয়ার সময় রানী রাসমণির সাথে বিবাদ বাধে এক ইংরেজ সাহেবের|জল অনেক দূর গড়ায় এবং রানীকে পঞ্চাশ টাকা জরিমানাও করা হয়|কিন্তু দমবার পাত্রী ছিলেন না রানী রাসমণি|ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়িয়ে তাদের উচিৎ শিক্ষা দিয়েছিলে তিনি এবং আরো বড়ো করে দূর্গা পুজোর আয়োজন করেছিলেন|বেগতিক দেখে পিছু হট তে বাধ্য হয়ে ছিলো ইংরেজরা|আরো একটি মজার ঘটনা ঘটেছিলো একবার এই বাড়ির পুজোয়|সেবার দূর্গা পুজো করতে এসেছিলেন স্বয়ং ঠাকুর রামকৃষ্ণ তবে ভিড় এড়াতে তিনি এক নারীর ছদ্মবেশ ধারন করেছিলেন|সখি বেশে চামর দুলিয়ে দূর্গাপুজো করেছিলেন রামকৃষ্ণদেব এবং জগদ্ধাত্রী পুজো অবধি তিনি এই বাড়িতেই ছিলেন|পুজো উপলক্ষে রানী রাসমণির পরিবারে কখনো বাই নাচ বা খানা পিনার আসর বসেনি সেই ভাবে তবে নিষ্ঠা ও ভক্তি সহকারে শাস্ত্রীয় পদ্ধতিতে মাতৃ শক্তির আরাধনার জন্য এই বাড়ির সুনাম ছিলো|পরবর্তীতে রানী রাসমণির জামাতা মথুর বাবু এই পুজোর দায়িত্ব গ্রহণ করেন|বংশ পরম্পরায় সেই ঐতিহ্য আজও চলে আসছে|আজও এখানে সমান ভক্তি ও শ্রদ্ধার সাথে দূর্গা পুজো অনুষ্ঠিত হয়|বাড়ির লোকেরা বিশ্বাস করেন দেবী এখানে সারা বছরই বিরাজ করেন|শোনা যায় এক কালে নাকি মধ্য রাত্রে, বাড়ির ঠাকুর দালানে দেবীর পায়ের নুপুরের শব্দও শোনা যেত|রাসমণি বাড়িতে কাঠামো পুজো হয় রথের দিন|প্রতিপদথেকে ঘরে পুজো শুরু হয়। ষষ্ঠীর দিন হয় বোধন এবং বেলবরণ। ওইদিনই দেবীর হাতে অস্ত্র দিয়ে গয়না পরানো হয়|সপ্তমী, অষ্টমী এবং নবমী এই তিনদিনই কুমারী পুজো হয়|এক কালে বলী প্রথা থাকলেও বলি বন্ধ হয়ে গিয়েছে বেশ কয়েকবছর|প্রথা মেনে এ বাড়িতে ভোগে দেবীকে লুচি ও পাঁচরকম ভাজা অর্পণ করা হয় আর থাকে নানা রকম মিষ্টি|থাকবে বনেদি বাড়ির পুজো, থাকবে থিম পুজো আর তার পাশাপাশি মহালয়া অমাবস্যা তিথিতে আপনাদের মা হৃদয়েশ্বরী সর্বমঙ্গলার মন্দিরে বিশেষ পুজো ও দোষ খণ্ডনের ব্যবস্থা থাকবে|দূর্গা পুজোও হবে প্রতিবারের ন্যায় নিষ্ঠার সাথে|পাশাপাশি ঐতিহাসিক পুজো নিয়ে আরো অনেক তথ্য নিয়ে ফিরে আসবো আগামী পর্বে|পড়তে থাকুন|ভালো থাকুন|ধন্যবাদ|

দেবী দুর্গার একত্রিশটি নাম

শাস্ত্রে দেবী দুর্গার একশো আটটি নামের উল্লেখ পাওয়া যায়|তার মধ্যে একত্রিশটি নাম ও তার অন্তর্নিহিত অর্থ আজ ব্যাখ্যা করবো|আর্যা : এটি মা দুর্গার কল্যাণময়ী রূপকে তুলে ধরে।ঐশানি : দেবী দুর্গার এই নামকে শক্তির প্রতীক মনে করা হয়।আদ্যা : এই নামের বেশ কিছু অর্থ আছে। প্রথমত আদি, এছাড়া এর আরও এক মানে পৃথিবী।অনিকা : দেবী দুর্গার এই নামে মায়ের অনুগ্রহ এবং প্রতিভা এবং সৌন্দর্য্য প্রকাশ পায়।বরুণি : এটি দেবী দুর্গার আরেক নাম এতে দেবী তেজ প্রকাশ পায়|ভার্গভী : এই নাম দেবী দুর্গার সর্বত সুন্দর এবং কমনীয় রূপকে তুলে ধরে।ভবানি : এই নামে দেবী দুর্গা ভব বা ভগবান শিবের ঘরণী।ভাব্য : এই নামের মধ্যে দিয়ে মায়ের সৌন্দর্য্য ও পবিত্রতাকে বর্ননা করা হয়।চণ্ডিকা : এটিও দেবীর আরেক নাম যা চন্দ্রর ক্ষুদ্র রূপে মাকে তুলে ধরে।চিতি : এই নামের অর্থ ঈশ্বরের উপহার।চিত্তরূপা : এই নামে দেবী সমগ্র সংসারের জন্য চিন্তাশীল।দক্ষণী : দক্ষ রাজের কন্যা হিসেবে দেবীর সতী রূপের নাম দক্ষিণী।দেবাশী : এই নামে দেবীকে দেবতাদের প্রধান রূপে বর্ণনা করা হয়।এশা : দেবীর পবিত্রতাকে এই নামে বর্ণনা করা হয়।গৌরি : দেবী পার্বতীর অপর নাম গৌরী এই নামে তিনি শিবের ঘরনী।গায়েত্রী : এটিও দেবী পার্বতীর একটি নাম যা ভারতে সকল বেদের মাতাএবং পরিত্রাণের স্তোত্রপাঠ হিসেবে বহুল প্রচারিত।হিমানি : হিমালয়ের কন্যা রূপে এটি দেবী পার্বতীর অপর নাম।ঈশা : এই নামের অর্থ যিনি সুরক্ষা প্রদান করেন।ইশি : এটি দেবী দুর্গার অপর নাম যার অর্থ চিরকালীন তারুন্য|জয়া : এর অর্থ হলো বিজয়। এটি দেবীর দুর্গা রূপের অপর নাম।জয়াললিতা : অর্থাৎ যিনি বিজয় লাভের জন্যই জন্মেছেন, মানে দেবী দুর্গা।কামাক্ষ্যা : দেবী এই নামে সকল ইচ্ছা ও কামনা পূরণ করেন।কৈশরী : দেবী পার্বতীর কৈশোর কালের নাম।কালাকা : দেবী দুর্গার এই নামের অর্থ চোখের তারারন্ধ্র মা নয়ন মনি কলাবতি : এই নামে দেবীর শিল্পসত্ত্বা প্রকাশিত।কন্যাকা : এই নামে দেবী কুমারী রূপে দর্শন দেন ।করলিকা : দেবীর এই নামের অর্থ যিনি ছিন্ন করতে পারেন।কাত্যায়নী : এই নামে দেবী লাল রঙের বস্ত্র পরিহিতা।কৌশিকী : দেবী দুর্গার অপর একটি নাম। এর অর্থ যিনি রেশমে আবৃতা।ক্রিয়া : এই নামের মধ্যে দিয়ে দেবীর কর্মদক্ষতা ফুটে ওঠে।কিরাতি : ভগবান শিব অর্থাৎ কীরাতেশ্বর এর ঘরণী রূপে দেবীর নাম কিরাতি।দেবী দূর্গা প্রসঙ্গে আরো অনেক কিছু বলার আছে তাই আসন্ন দূর্গা পুজো উপলক্ষে আরো অনেক এমন বিশেষ পর্ব আপনাদের জন্য নিয়ে আসবো|পড়তে থাকুন|ভালো থাকুন|ধন্যবাদ|