বাংলার শিব – ফুলেশ্বর শিব মন্দিরের ইতিহাস

16

বাংলার শিব – ফুলেশ্বর শিব মন্দিরের ইতিহাস

পন্ডিতজি ভৃগুশ্রী জাতক

চৈত্র মাস মানেই শিবের মাস । এই শিব মহিমা বর্ণনা করার আলাদা মাহাত্ম আছে। তাই আমি চেষ্টা করি প্রতি দিন আপনাদের জন্য শিব নিয়ে কিছু বলতে ।আজকের পর্বে আপনাদের একটি অদ্ভুত শিব মন্দিরের কথা জানাবো যাকে কেন্দ্র করে অসংখ্য অলৌকিক জনশ্রুতি বা ঘটনা শোনা যায়।আজকের পর্বে ফুলেশ্বর শিব মন্দির।

ফুলেশ্বর বাবার অবস্থান আমতা কুশবেড়িয়া বিখ্যাত বানেশ্বর শিব মন্দিরের কিছুটা আগে। জায়গাটির নাম তাজপুর।প্রায় তিনশো আশি বছর প্রাচীন এই ফুলেশ্বর বাবার মন্দির। মন্দির বাবার ভক্তদের দ্বারা একাধিক বার সংস্কার হয়েছে। তবে আসলে কবে এবং কে এই মন্দির বা শিব লিঙ্গ স্থাপন করেছিল তা নিয়ে একটি কিংবদন্তী প্রচলিত আছে এই এলাকায়।শোনা যায় বহু বছর আগে এই তাজপুর ছিলো ঘন জঙ্গলে ঢাকা। তখন ডাকাত বা তান্ত্রিক সন্ন্যাসীরা ছাড়া বড়ো একটা কেউ আসতো না এদিকে।সেই জঙ্গলে নাকি জমিদার বাড়ির কামধেনু গাই যেত নিয়ম করে এবং সেই কামধেনু গাই প্রতিদিন একটি শিলা মূর্তিতে দুধ দিয়ে আসত। এই ঘটনা স্বপ্নাদেশে জানতে পারেন জমিদার এবং তিনি সেখানে গিয়ে পাথর খণ্ডটি দেখে বুঝতে পারেন যে এটি আসলে পঞ্চশীরের শিবমূর্তি। তারপর আবার স্বপ্নাদেশ হয় এবং সেই স্থানে জমিদার মন্দির নির্মাণ করে মূর্তি প্রতিষ্ঠা করেন।

আগে বাবার মূর্তি প্রায় দু-ফুট উচ্চতায় জেগে ছিল। বর্তমানে ফুলেশ্বর বাবা প্রায় মাটির অনেকটা গভীরে অবস্থান করছেন। অনেকে মনে করেন মহাদেব ধীরে ধীরে পাতালে প্রবেশ করছেন। এই শিব ক্ষেত্রে অলৌকিক ঘটনার শেষ নেই।

প্রতি বছর নীল ষষ্ঠীতে বাবার অভিষেক হয়। এই দিন ভক্ত ও সন্ন্যাসীরা বাবার মাথায় কয়েকশো ঘরা জল, ডাব, দুধ এবং গঙ্গাজল ঢালেন। বিস্ময়কর ঘটনা হল সর্বশেষ মূল সন্ন্যাসী বাবার মাথায় জল ঢালেন। সেই জল ঢালার পর বাবার কৃপায় চরণামৃত উঠে আসে পাতাল থেকে।

এই মন্দিরের ভিতরে নাকি নিয়মিত জোয়ার ভাটা খেলে। রহস্যজনক ভাবে এই জল মন্দিরে আসে পাতাল থেকে এবং আবার যথা সময়ে পাতালেই মিলিয়ে যায়।প্রতিদিন দুপুরে মধ্য গগনে সূর্য অবস্থান হলে। তার রশ্মি বাবার মাথায় পড়লে তবেই পুজো শুরু হয়। এ ভাবেই চলে সারা বছর।দুবেলা পুজো হয় নিয়ম মেনে।

তবে এই আসন্ন চৈত্র সংক্রান্তি তে নীল ষষ্ঠীর দিন এবং শিব রাত্রিতে জাঁকজমক করে পুজো হয়।ফিরে আসবো পরের পর্বে। নতুন কোনো শিব মন্দিরের কথা নিয়ে।পড়তে থাকুন।
ভালো থাকুন। ধন্যবাদ।