একান্ন পীঠ – শ্রী সুন্দরী

31
শ্রী পর্বত শক্তিপীঠকে একান্নটি শক্তিপীঠের মধ্যে একটি বলে মনে করা হয়।পীঠ নির্ণয়তন্ত্র এবং তন্ত্র চূড়ামনি গ্রন্থ মতে শ্রী সুন্দরী শক্তিপীঠ ছত্রিশতম এবং শিব চরিত মতে পঞ্চম পীঠ শ্রী সুন্দরী।
দেবী সতীর গোড়ালি পড়েছিল শ্রী পর্বত শক্তিপীঠে। এখানে মাতা সতী ‘শ্রী সুন্দরী’ এবং ভগবান শিব ‘সুন্দরানন্দ’ নামে পরিচিত।
শক্তি পীঠ টি একটি প্রাচীন কালী মন্দির।
এই কালী মন্দিরটিকে স্থানীয়রা শক্তিপীঠ হিসেবে পূজা করে।দেবী কালীকা রূপে বিরাজ করছেন সঠিক বয়স না জানা গেলেও মনে করা হয় মন্দিরটি প্রায় ৪০০ বছরের প্রাচীন
মহাভারতে এই শক্তিপীঠের উল্লেখ আছে। সেখানে দেখা যায় অর্জুন এই শক্তি পীঠে এসে পুজো করছেন এবং নিকট বর্তী জ্যোতির্লিঙ্গ শ্রী শৈলতে এসে শিবের কাছে যুদ্ধে জয়ের জন্য প্রার্থনা করছেন। তিনি এখানে মল্লিকা ফুল দিয়ে পুজো করায় এই শিব লিঙ্গ মল্লিকার্জুন নামে খ্যাত।
এই শ্রী পর্বত সংলগ্ন এলাকায় এক সময় আদি সংকরাচার্য্য এসেছিলেন। শোনা যায় এখানকার তান্ত্রিকরা তার বিরুদ্ধে চক্রান্ত করেন এবং তাকে এই শক্তিপীঠে বলী দেয়ার ষড়যন্ত্র করেন। সংকরাচার্য্যর শিষ্যরা সব জেনে ফেলেন এবং তার প্রাণ রক্ষা হয়।
শ্রী পর্বতে যেখানে মায়ের মন্দির তা প্রাকৃতিক ভাবে অপূর্ব সৌন্দর্য দিয়ে ঘেরা। পাহাড়ের গায়ে মায়ের মন্দির এবং পাহাড়ে দের হাজার ফুট উঁচুতে ভৈরবের মন্দির। দেড় হাজার সিঁড়ি ভেঙে সেখানে যেতে হয়।
এই অঞ্চল বর্তমানে অন্ধ্রপ্রদেশের অন্তরগত যদিও প্রকৃত শ্রী পর্বত এবং শ্রী সুন্দরী শক্তিপীঠের অবস্থান নিয়ে কিঞ্চিৎ বিতর্ক আছে। অনেকের মতে এই স্থান আসলে হিমালয়ের পাদদেশে লাদাখে। তবে পুরান এবং অন্যান্য ধর্মগ্রন্থ মতে শ্রী শৈল মল্লিকার্জুন সংলগ্ন পার্বত্য অঞ্চলেই অবস্থিত এবং বিজয় নগরের রাজারা এই মন্দির এবং দেবী শ্রী সুন্দরীর পুজোর দায়িত্ব পালন করতেন।
সারা বছর ভক্তদের আগমন লেগে থাকে তবে দুর্গাপূজা এবং নবরাত্রিতে বিশেষ পূজার আয়োজন করা হয়।
ফিরে আসবো আগামী পর্বে। অন্য এক শক্তিপীঠ সংক্রান্ত পৌরাণিক এবং আধ্যাত্মিক আলোচনা নিয়ে। পড়তে থাকুন। ভালো থাকুন। ধন্যবাদ।