শিব চতুর্দশী বিশেষ পর্ব- চার পাঁচ ও ছয় মুখী রুদ্রাক্ষ

306

বিগত পর্বে এক দুই ও তিন মুখী রুদ্রাক্ষ নিয়ে লিখেছিলাম আজ লিখবো চার পাঁচ ও ছয় মুখী রুদ্রাক্ষ নিয়ে।শাস্ত্র মতে চার মুখের রুদ্রাক্ষের মধ্যে ব্রহ্মার সমস্ত শক্তি নিহিত আছে। জ্যোতিষ শাস্ত্র মতেএটি ধারণ করলেই যে সমস্ত পড়ুয়ার পড়া শুনে অমনোযোগ সে ক্ষেত্রে সমস্যা মিটে যায়। তবে শুধু ধারণ করাই নয় দরিদ্র বা দুঃস্থ কোনও ব্যক্তি এই রুদ্রাক্ষ পুজো করলেই শীঘ্রই আর্থিক কষ্ট থেকে মুক্তি পায়।এই রুদ্রাক্ষ ধারণ করলে মানসিকভাবে বিপর্যস্ত যে কোনো ব্যক্তি স্বচ্ছলতা ফিরে পান।এই রুদ্রাক্ষ গলায় থাকলে শত্রুপক্ষ কোনও ক্ষতি করতে পারে না।চারমুখী রুদ্রাক্ষ সংসারের শ্রীবৃদ্ধি ঘটায় এবং বহু জন্মের পাপ খণ্ডন করতে সাহায্য করে।শ্রাবন মাসে বা শিব রাত্রিতে শোধন করে এই রুদ্রাক্ষ ধারণ করলে, ধর্ম, অর্থ, কাম, মোক্ষ লাভ হয়। ওম হ্রীং নম: মন্ত্র জপ করে একে ধারণ করতে হয়।চার মুখী রুদ্রাক্ষর নিয়ন্ত্রক গ্রহ বুধ এবং ধারণ করলে সৃজনশক্তি বৃদ্ধি পায়। সন্তানের বিদ্যার উন্নতির জন্য চার।এই রুদ্রাক্ষর অধিষ্ঠাতা দেবতা ব্রহ্মা। বুধবার দিন গঙ্গা জলে শোধন করিয়ে ওঁম নমঃ শিবায় মন্ত্র জপ করেও চার মুখী রুদ্রাক্ষ ধারণ করতে পারেন।পাঁচ মুখী রুদ্রাক্ষর অধিষ্ঠাতা দেবতা কালাগ্নি রুদ্র। নিয়ন্ত্রক গ্রহ বৃহস্পতি।পাঁচ মুখী রুদ্রাক্ষ ধারণ করলে স্বাস্থ্য ও শান্তি সুরক্ষিত থাকে।অনেকের মতে একে ধারণ করলে এক কথায় সমস্ত সমস্যার সমাধান হয়।পাঁচ মুখী রুদ্রাক্ষ ধারণের পূর্বে ওম হ্রীং নম: মন্ত্র জপ করবেন। পঞ্চমুখী রুদ্রাক্ষ শান্তিদায়ক, পাপনাশক।শাস্ত্রে আছে গো-ব্রাহ্মণ হত্যাকারীর পাপমোচন করে এই ররুদ্রাক্ষ। এতে মানুষের শ্রীবৃদ্ধি ঘটে। এই রুদ্রাক্ষ ধারনে মানবের আধ্যাত্মিক জ্ঞান ও ধর্মানুশীলন বৃদ্ধি পায়।খুবই সহজ লভ্য ও সস্তাদামের হয় পাঁচ মুখী রুদ্রাক্ষ।তবে জ্যোতিষ শাস্ত্রে এর গুরুত্ব অপরিসীম। বৃহস্পতিবার লাল ধাগায় কাঁচা দুধ ও ঘি দিয়ে শোধন করে মহা মৃত্যুঞ্জয় মন্ত্র পাঠ করে পাঁচ মুখী রুদ্রাক্ষ ধারণ করতে পারেন।ছয় মুখী রুদ্রাক্ষ আপনার প্রেম ও দাম্পত্য জীবনের জন্য আশীর্বাদ স্বরূপ।অধিষ্ঠাতা দেবতা কার্তিকেয়। নিয়ন্ত্রক গ্রহ শুক্র।এই রুদ্রাক্ষ ধারণে শোক থেকে মুক্তি ঘটে। উচ্চশিক্ষা লাভ হয়।বিবাহিত জীবন সুখের হয়। এটি কার্তিকের রুদ্রাক্ষ। এটি পরলে ব্রহ্মহত্যার পাপ থেকে মুক্তি পাওয়া যায় বলে শাস্ত্রে উল্লেখ আছে।পরার সময় ওম হ্রীং হুম নম: মন্ত্র জপ করবেন শোনা বা রুপো অথবা হলুদ ধাগায় শুক্রবার এই রুদ্রাক্ষ ধারণ করতে হয়।সব রকম অশুভ শক্তিথেকে নিজেকে রক্ষা করতে বা শত্রুকে নিয়ন্ত্রনে রাখতে এই রুদ্রাক্ষর জুড়ি নেই।শিব চতুর্দশী উপলক্ষে চলবে রুদ্রাক্ষ নিয়ে এই ধারাবাহিক লেখা।বাকি রইলো আরো অনেকগুলি রুদ্রাক্ষর কথা। সেগুলি নিয়েও আলোচনা হবে আগামী পর্ব গুলিতে।পড়তে থাকুন।ভালো থাকুন। ধন্যবাদ।