পাইক গাছার কপিলেস্বরী কালী মন্দিররের ইতিহাস

43

বাংলার কালী মন্দির মানে শুধু পশ্চিমবঙ্গ নয় বাংলাদেশেও আছে বেশ কিছু কালী মন্দির|আজকের পর্বে আপনাদের এমনই এক ঐতিহাসিক কালী মন্দির নিয়ে বলবো তবে তার আগে এই কালী তত্ত্ব নিয়ে একটা কথা বলে রাখি|দক্ষযজ্ঞের প্রাক্কাল। এমন সময় পিতৃগৃহে যেতে বদ্ধপরিকর সতী, আর মহাদেব তাঁকে আটকাতে বদ্ধপরিকর। বাধ্য হয়েই আঙুল বাঁকাতে হল মহামায়াকে। “দশমহাবিদ্যা” অর্থাৎ নিজের প্রধান দশটি রূপ— কালী, তারা, ষোড়শী, ভৈরবী, ভুবনেশ্বরী, ছিন্নমস্তা, ধূমাবতী, বগলামুখী, মাতঙ্গী এবং কমলার বেশে দশ দিক থেকে ঘিরে ধরে ভয় দেখালেন স্বামীকে। ব্যস! তাতেই বাজিমাত— মিলল অনুমতি।অর্থাৎ দশ মহাবিদ্যার অন্তর্গত বিশেষ একটি রূপ দেবী কালী|উৎপত্তি ভীতি সঞ্চার করার জন্য হলেও উদ্দেশ্য মহৎ|কপিলমুনি কালী বাড়ী হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের জন্য এক পবিত্র স্থান।পুন্যত্মা কপিল মুনি কোন এক সময় সাধনায় সিদ্ধিলাভের জন্য কপোতাক্ষের পাড়ে সিদ্ধেশ্বরী কালী মন্দির স্থাপন করেন।কিন্ত কালের বিবর্তনের সাথে এটি বিলিন হয়েযায়।পরবর্তীতে রায়সাহেব বিনোদ বিহারী মন্দিরটি পুনর্নির্মাণ করেন বাংলার ১৩৩৬ সালে|বর্তমানে সেই মন্দিরেই হয় পুজো|শোনা যায় জাগ্রত মা এখানে কোন এক বারুণী মেলার সময় রায় সাহেবের মেয়ে পরিচয় দিয়ে এক সাখারুর নিকট থেকে সাখা পরেন|তিনি সাখারুকে বলেন আমার বাবার নিকট থেকে টাকা নেবেন।এদিকে বিনোদের তখন কোন কন্যাই ছিলনা।তিনি সাখারুর টাকা পরিশোধ করে দিয়ে চিন্তা করতে থাকেন কে হবে এই মেয়েটি।তিনি সন্ধ্যায় পুজা দিতে গিয়ে অবাক হয়ে দেখেন মায়ের হাতে নতুন সাখা। তিনি পুরহিতকে ডেকে জানতে চান মায়ের হাতে সাখা দিয়েছে কে? পুরহিত কোন উত্তর দিতে পারেনা। তখন তিনি আনন্দে কেঁদে ফেলেন। তিনি বুঝতে পারলেন তার মেয়ে আর কেউনা সাক্ষাত মা কালী যিনি বালিকা রূপে তার নিজের কন্যা পরিচয়ে এসেছিলেন|আজও প্রতিটি বিশেষ তিথিতে এখানে বিশেষ পুজো হয় এবং বহু দুর থেকে দর্শণার্থীরা আসেন|আপনারা হয়তো জানেন শাস্ত্র মতে গ্রহ দোষ খন্ডনের অন্যতম শ্রেষ্ট তিথি দীপান্বিতা অমাবস্যা আগামী 24 নভেম্বর দীপান্বিতা অমাবস্যায় আমার গৃহ মন্দির ও তারাপীঠ মহা শ্মশানে একসাথে হবেহোম যজ্ঞ ও তন্ত্র মতে গ্রহের প্রতিকার আপনারা চাইলে এই মহা যজ্ঞে নিজের গ্রহ দোষ খণ্ডন অনুষ্ঠানে অংশ নিতে পারেন|ধারাবাহিক ভাবে চলতে থাকবে কালী তত্ত্ব ও বিভিন্ন কালী মন্দির নিয়ে আলোচনা|ফিরে আসবো আগামী পর্বে কালী কথা নিয়ে |থাকবে অন্য কোনো মন্দিরের ইতিহাস|পড়তে থাকুন|ভালো থাকুন|ধন্যবাদ|