শিব কথা – শিবলিঙ্গর রহস্য

141

শ্রাবন মাসে আমরা অনেকেই শিব লিঙ্গে গঙ্গা জল বেলপাতা অর্পণ করি এবং আরো অনেক শাস্ত্রীয় উপাচার পালন করি|কিন্তু এই শিব লিঙ্গের স্বরূপ ও তার অন্তর্নিহিত গভীর তাৎপর্য নিয়ে মানুষের মধ্যে কিছু ভুল ভ্রান্তিও আছে|আজকের পর্বে চেষ্টা করবো এই শিব লিঙ্গের রহস্য ভেদ করার|লিঙ্গ শব্দের অর্থ সংস্কৃতে ‘চিহ্ন বা প্রতীক’। আরো অর্থ হয় তা হলো বাসস্থান|শিব লিঙ্গ আদি অনন্ত মহা শক্তির প্রতীক ও দেবাদিদেব মহাদেবের বাসস্থান ও বলা যেতে পারে|মহাপুরাণের মধ্যে অন্যতম ‘লিঙ্গপুরাণ’, যাতে লেখা আছে শিব লিঙ্গের রহস্য ও আরো অনেক তথ্য|লিঙ্গ পুরাণের তৃতীয় অধ্যায়ের শুরুতে শিব লিঙ্গের বর্ণনায় বলা আছে যে নির্গুণ ব্রহ্মকেই লিঙ্গ বলে। মহাদেব সেই নির্গুণ ব্রহ্ম তার থেকেই সকল শক্তির উৎপত্তি|সমগ্র শিবলিঙ্গের আকৃতির তিন ভাগ আছে এবং পাশে যে ত্রিশূল বসানো থাকে তার তিনটি শূল তিন গুণের প্রতীক, যথা- সত্ত্ব গুন,রজ গুন, এবং তম গুন| তিন গুণ যথাক্রমে সৃষ্টিকর্তা- ব্রহ্মা, পালনকর্তা- বিষ্ণু ও সংহারকর্তা- শিব কে বোঝায়।শিব লিঙ্গেও এই তিন শক্তির বাস|সবার নিচের অংশ বা ভুমি ভাগে সৃষ্টিকর্তা ব্রহ্মার অংশ। এটি আমাদের বোঝায় সব কিছুর মুলেই সৃষ্টিকর্তা বিদ্যমান। আর সবকিছুর সাত্ত্বিক গুণসম্পন্ন শান্তিময় স্থান এটি। অর্থাৎ ঈশ্বরের ছত্রতলেই জগতের সব শান্তি।পীঠ বা মধ্য ভাগে পালনকর্তা বিষ্ণু অবস্থান করে। এই অংশ বোঝায় বিষ্ণু নিজে আমাদের ধারণ করেছেন তার মধ্যে এবং সুরক্ষা দিচ্ছেন। এইটি রজগুণকে বুঝায় যা সত্ত্ব আর তমের মধ্যে সংযোগ স্থাপন করে। আবার এই অংশ বিষ্ণুর বৈশিষ্ট্যকেও বোঝায়। বিষ্ণু মোক্ষ দানে সহায়তা করে, যা শিব লিঙ্গে ঢালা জলের মধ্যে প্রকাশ পায়। জল যা জীবনের প্রতীক তা জগতে ঈশ্বরের মধ্যে দিয়ে প্রকৃতিতে এসে আবার বিলীন হয়ে যায়।সর্বোপরি রুদ্র ভাগ এবং এই অংশ কে মূল লিঙ্গ বলে । একে পূজা ভাগও বলে। শিব নিজে এখানে অবস্থান করে। যা সর্বশক্তির উৎস ও কেন্দ্র। লিঙ্গপুরাণের পূর্বভাগের অধ্যায়-১৭ তে এর বর্ণনা দেওয়া আছে এইভাবে যে শিব নিজে এই ভাগে ধ্যান অবস্থায় আছেন। শিব সাকার কিন্তু লিঙ্গের মধ্যে তার আকার নেই, কিন্তু পরমেশ্বর নিরাকার কিন্তু লিঙ্গে তিনি লিঙ্গ আকৃতিতে অবস্থিত। এবং এই জন্যই সকল প্রকার আরাধনাই এই শিবলিঙ্গে সম্ভব, যা একই সঙ্গে সাকার ও নিরাকার এবং সমগ্র জগতের প্রাণ কেন্দ্র।শিব লিঙ্গের গায়ে আঁকা থাকে মঙ্গল-তিলক যা ত্রিপুণ্ড্র নামে পরিচিত তা ঈশ্বরের সৃষ্টির তিন লোক স্বর্গ মর্ত আর পাতাল বোঝায়।আগামী পর্বে শিব সংক্রান্ত অন্য কোনো বিষয় ও শাস্ত্রীয় ব্যাখ্যা নিয়ে আবার ফিরে আসবো|পড়তে থাকুন|ভালো থাকুন|ধন্যবাদ|