শক্তিপীঠ – বিশালক্ষী

11
সনাতন ধর্মে কাশি হল একটি মহা পুণ্যময় তীর্থ
যদিও শৈব্য তীর্থ হিসেবেই বেশি পরিচিত তবু এই কাশির অধীস্টাত্রী দেবী মা অন্নপূর্ণা এবং কাশির সুরক্ষার ভার অর্পণ করা হয়েছে স্বয়ং কাল ভৈরবকে।প্রায় সবকটি পুরাণে এই নগরের মাহাত্ম্য উল্লেখ রয়েছে। পুরানে বলা হয়েছে কাশি নগর ভগবান শিবের ত্রিশূলের উপরে অবস্থিত। এই কাশিতেই রয়েছে একটি শক্তি পীঠ শাস্ত্রে
যার নাম বিশালক্ষী।
এই কাশিতে বিশালক্ষী মন্দির যে স্থানে আছে সেখানে দেবীর কানের দুল পতিত হয়েছিল।
শিবপুরানেও এই শক্তি পীঠের উল্লেখ আছে এবং বলা হয়েছে এখানে দেবীর দেহের কোন অংশ পড়েনি তবে দেবীর গহনা অথবা অলংকার পড়েছিল। দেবী হলেন অন্নপূর্ণা আর ভৈরব হলেন বিশ্বনাথ।দেবীর আরেক নাম মনিকর্নিকা তার নামেই মনিকর্নীকা ঘাট এবং এখানে দেবীর ভৈরব হলেন স্বয়ং কালভৈরব।
পুরান অনুসারে ভগবান বিষ্ণু কাশিতে এসে সুদর্শন চক্র দিয়ে একটি পুষ্করিণী খনন করেছিলেন এবং সেখানে বসে হর গৌরীর তপস্যা করেন। সেই সময় ভগবান বিষ্ণুর শরীর থেকে ঘাম নির্গত হয়ে এই পুষ্করিণী টি জলে পূর্ণ হয়।পরবর্তীতে বিষ্ণুর ধ্যানে সন্তুষ্ট হয়ে হর গৌরী দেখা দেন।
শাস্ত্র মতে মা গৌরীর কানের দুল এই জলে পতিত হয়েছিল।তখন থেকেই এই জলাশয়ের নাম হয় মনিকর্নিকা। পরবর্তীতে এই জলাশয় গঙ্গাতে মিলিত হয় এবং গঙ্গার ঘাটটির নাম হয় মণিকর্নিকা।
বিশালক্ষী শক্তি পীঠের আশেপাশের পরিবেশ এক কথায় অপূর্ব। মন্দিরে দুটি বিশালক্ষী দেবীর মূর্তি আছে। মনে করা হয় প্রথম মূর্তিটির আড়ালে আছে আদি বিশালক্ষী মূর্তি যা স্বয়ম্ভু অর্থাৎ অলৌকিক ভাবে দেবী নিজেই এখানে প্রকট হয়েছেন।
সারা বছর পুজো হলেও নব রাত্রি এই শক্তিপীঠে প্রধান উৎসব। নবরাত্রিতে দেবীর বিশেষ পুজো হয় এবং প্রচুর ভক্ত সমাগম হয়।
আবার অন্য একটি শক্তিপীঠের ইতিহাস এবং পৌরাণিক ব্যাখ্যা সাথে শাস্ত্রীয় তথ্য নিয়ে
ফিরে আসবো আগামী পর্বে। পড়তে থাকুন।
ভালো থাকুন। ধন্যবাদ।