মন্দির রহস্য – করুনাময়ী কালী মন্দির

13

টালিগঞ্জ এর করুণাময়ী কালী মন্দিরের কথা আপনাদের আগে বলেছি|আজ মন্দির রহস্য পর্বে আপনাদের জন্য উত্তর বঙ্গের রায় গঞ্জে অবস্থিত বিখ্যাত করুণাময়ী কালী মন্দির নিয়ে লিখবো যে মন্দির ঘিরে আছে অসংখ্য রহস্য ও অলৌকিক ঘটনা|রায় গঞ্জ দিয়ে প্রবাহিত কুলিক নদীর তীরে রায়গঞ্জ বন্দর অবস্থিত| সেখানেই ছোট তিনরাস্তার মোড়ে রয়েছে আদি করুনাময়ী কালী মন্দির। বর্তমান মন্দিরের আনুমানিক বয়স কয়েকশো দুশো বছরের বেশি যদিও পুজো হচ্ছে আরো আগে থেকে । আজও সাধক বামাক্ষ্যাপার উত্তরসূরিরা এই মন্দিরের দায়িত্বে আছেন ।শোনা যায় একদা কুলিক নদী দিয়ে বজরা নিয়ে বাণিজ্যে যেতেন সওদাগরেরা।ব্যবসা-বাণিজ্য করতে যাওয়ার সময় এই মন্দিরে পুজো দিতে যেতেন তারা|বর্তমান সময়ে কুলিক নদীর গতিপথ অনেকটাই সংকীর্ণ|শোনা যায়, প্রায় সাড়ে পাঁচশো বছর আগে এই পুজোর প্রচলন হয়। সিদ্ধিলাভের জন্য পঞ্জাব প্রদেশের এক সাধু হেঁটে এসে কুলিক নদীর তীরে বন্দর এলাকায় একটি গাছের নীচে পঞ্চমুণ্ডি আসন প্রতিষ্ঠা করে সাধনায় বসেন। সিদ্ধিলাভও করেন তিনি। তারপর তিনি চলে যান। সেই থেকেই এই পঞ্চমুণ্ডির বেদিতে কালীপুজো শুরু হয়।জনশ্রুতি আছে যে বেদি প্রতিষ্ঠার পর থেকে এখানে মা হেঁটে বেড়াতেন। রাতে মায়ের পায়ের নূপুরধ্বনি শোনা যেত। দিনাজপুরের তৎকালীন রাজা মায়ের স্বপ্নাদেশ পেয়ে এই স্থানে মন্দির নির্মাণ করেন। মন্দির নির্মাণের পর বামাক্ষ্যাপার উত্তরসূরী সাধক জানকীনাথ চট্টোপাধ্যায় ১২১৬ সালে বেনারস থেকে মায়ের কষ্টিপাথরের মূর্তি এনে মন্দিরে স্থাপন করেন। তখন থেকে এই মন্দিরে নিত্যপুজো শুরু হয়।রায়গঞ্জের করুণাময়ী কালী মন্দিরে প্রতিটি অমাবস্যা তিথিতে এবং বিশেষ করে দীপান্বিতা অমাবস্যা তিথিতে তন্ত্র মতে পূজিতা হন মা।আজও কালীপুজোর রাতে নাকি মন্দির থেকে মায়ের পায়ের নুপূরধ্বনি শুনতে পাওয়া যায়। দেবীকে নাকি হেঁটে বেড়াতেও দেখেছেন অনেকে। দীপান্বিতা অমাবস্যার রাতে কলকাতা সহ অন্যান্য জেলার পাশাপাশি ওডিশা, বিহার, এমনকি বাংলাদেশ থেকেও রায়গঞ্জ বন্দরের প্রসিদ্ধ এই কালীবাড়িতে প্রচুর ভক্ত আসেন। স্থানীয়দের বিশ্বাস আদি মন্দিরের মা কালী খুব জাগ্রত, তাঁর কাছে প্রার্থনা করলেই তা পূরণ হবে।তন্ত্র মতে এখানে দেবীর পুজো হয় তাই পশুবলী দেয়া হয়|তাছাড়া বিশেষ বিশেষ তিথিতে হোম যজ্ঞ ও চন্ডীপাঠ হয়|সারা দেশে বিশেষ করে বাংলায় মন্দিরের সংখ্যা প্রচুর|তাদের সাথে জড়িয়ে আছে অসংখ্য কিংবদন্তী এবং অলৌকিক ঘটনা|আবার ফিরে আসবো অন্য কোনো মন্দিরের রহস্য নিয়ে আগামী পর্বে|পড়তে থাকুন|ভালো থাকুন|ধন্যবাদ|