আদি বিনায়ক মন্দিরে রহস্য

18

ভারতের বিভিন্ন প্রান্তে সিদ্ধিদাতা গণেশের বহু প্রসিদ্ধ মন্দির রয়েছে এবং প্রতিটি মন্দিরে তাঁর মূর্তি গজাননরূপেই স্থাপিত হয়। কিন্তুতামিলনাড়ুর তিরুভারুরের বিখ্যাত আদিবিনায়ক মন্দিরে গণপতির মুখের আদল মানুষের মতো|আজ মন্দির রহস্যর এই পর্বে সেই মন্দিরটি নিয়েই লিখবো |আদি বিনায়ক মন্দিরে গণেশর মুখ মানুষেরমতো হওয়ার কারণ হল|গণেশের গজানন মুখ সৃষ্টি হওয়ার আগে তাঁর মুখ ছিল বাকি সবার মতো স্বাভাবিক অর্থ্যাৎ মানুষের মতো|গণেশ কে এখানে তার আগের রূপেই পূজা করা হয়।বিঘ্নহর্তা গণেশের এই রূপ খুব কমই পুজো করা হয়। এই রূপে গণেশের হাতে রয়েছে একটি কুড়ুল, একটি দড়ি, একটি মোদক ও একটি পদ্ম|আদি বিনায়ক মন্দিরে শুধু শ্রী গণেশই নয়, শিব ও মা সরস্বতীরও পূজা করা হয়। ফলে বহু ভক্ত একযোগে মহাদেব, আদি বিনায়কের সঙ্গে দেবী সরস্বতীর আশীর্বাদ পেতেও এখানে আসেন।আদি বিনায়ক মন্দির বহু প্রাচীন|সম্ভবত রামায়ণের যুগের ও আগের|কারন শোনা যায়ভগবান রাম একবার আদি বিনায়ক মন্দিরে তাঁর পূর্বপুরুষদের আত্মার শান্তির জন্য পুজো দিয়েছিলেন|আজও বহু মানুষ পিতৃ পুরুষের আত্মার শান্তির জন্য এই মন্দিরে পুজো দিতে আসেন|ভক্তরা বিশ্বাস করেন, মহাগুরু অগস্ত্য স্বয়ং প্রতি ‘সংকষ্টি চতুর্থীতে’ আদি বিনায়কের পূজা করেন। এমনও বিশ্বাস করা হয় যে এখানে গণেশের পূজা করলে পারিবারিক অশান্তি দুর হয় ও পরিবারের শিশুদের বিশেষ ভাবে কল্যান হয়|আগামী পর্বে যথা সময়ে আবার ফিরে আসবো অন্য কোনো মন্দিরের রহস্য ও তার শাস্ত্রীয় ব্যাখ্যা নিয়ে|পড়তে থাকুন|ভালো থাকুন|ধন্যবাদ|