হোম যজ্ঞ কেনো করা হয়?

434

এই যে আমরা আধ্যাত্মিক জগতের মানুষরা প্রতিটি বিশেষ তিথিতে হোম যজ্ঞ করি বা সনাতন ধর্ম মতে প্রত্যেকটি শুভ অনুষ্ঠানের প্রধান অংশ হিসেবে হোম যজ্ঞ করা হয়, তা কেনো করা হয়? হোম ও যজ্ঞ কি শুধুই একটি উপাচার বা শাস্ত্রীয় পরম্পরা নাকি এর মধ্যে লুকিয়ে আছে অন্য কোনো রহস্য? আজ এই বিশেষ পর্বে খুঁজবো এই সব প্রশ্নের উত্তর পাশাপাশি জানাবো পুরান ও অন্যান্য শাস্ত্রে হোম যজ্ঞ সম্পর্কে কি তথ্য আছে, কত রকম যজ্ঞ হয়, ও যজ্ঞ সংক্রান্ত আরো অনেকে ব্যাখ্যা ও পৌরাণিক ঘটনবলী|সনাতন ধর্মে,পুজো করার যত পদ্ধতি আছে , তারমধ্যে যজ্ঞ সর্ব্বশ্রেষ্ঠ।যে কোন ধরনের পূজা সম্পূর্ণ হয় যজ্ঞ সম্পদানের মাধ্যমে|দেবতার অনুগ্রহ লাভের উদ্দেশ্যে বেদমস্ত্র উচ্চারণপূর্বক অগ্নিতে আহুতি প্রদান অনুষ্ঠানই যজ্ঞ।এই যজ্ঞর দেবতা হলেন স্বয়ং অগ্নিদেব তার মাধ্যমেই আহুতি পৌঁছে যায় নিদ্দিষ্ট গন্তব্যে|যেকোনো যজ্ঞেই স্বহা উচ্চারিত হয় বার বার তার পেছনেও আছে এক পৌরাণিক ব্যাখ্যা|অগ্নিদেবের স্ত্রী হলেন স্বহা,অগ্নিদেবের সঙ্গে তাঁর বিবাহ সম্পন্ন হয়।কৃষ্ণ স্বয়ং স্বাহাকে আশীর্বাদ দিয়েছিলেন যে, শুধুমাত্র তাঁর মাধ্যমেই দেবতা হবিষ্য গ্রহণ করতে পারবেন। যজ্ঞ তখনই পূর্ণ হবে যখন আমন্ত্রিত দেবতাদের তাঁদের পছন্দের ভোগ পৌঁছে দেওয়া যাবে।সেই থেকে যজ্ঞের আহুতির মুহূর্তে তাকে স্মরণ করার প্রথা শুরু হয়|

শাস্ত্রে বিভিন্নরকমের যজ্ঞর উল্লেখ আছে|নব-গ্রহের সমসার জন্য নব-গ্রহ যজ্ঞ , সন্তান সমসার জন্য গোপাল-হোম , আর্থিক সমসস্যার জন্য মহা-লক্ষ্মীর যজ্ঞ ইত্যাদি করার বিধান দেওয়া আছে আমাদের শাস্ত্রাগুলোতে আবার পুরান ও রামায়ণ মহাভারতে উল্লেখ আছে অস্বমেধ যজ্ঞ, রাজশুয়ো যজ্ঞ, সর্প যজ্ঞ, এমনকি নর মেধ যজ্ঞর উল্লেখ ও রয়েছে|মহাভারতে রাজা যুধিষ্ঠির অশ্বমেধ যজ্ঞ করেছেন। এই যজ্ঞে একটা ঘোড়া বেঁধে রেখে হোম যজ্ঞ করা হতো আগুন জ্বালিয়ে তাতে ঘি, চন্দন কাষ্ঠ ইত্যাদি সুগন্ধি দ্রব্য দিয়ে বৈদিক মন্ত্র উচ্চারিত হতো তার পর সেই ঘোড়াকে ছেড়ে দেয়া হতো। বৈদিক যুগের রাজা সম্রাটরাই এই অশ্বমেধ যজ্ঞ করতো। যজ্ঞের পর ঘোড়াকে ছেড়ে দিয়ে তার পিছনে সম্রাটের সেনাবাহিনী থাকত। ঐ ঘোড়া বিভিন্ন রাজ্যে প্রবেশ করতো। যে রাজা ঐ ঘোড়া আটক করতো না সেই রাজা যজ্ঞকারী সম্রাটের অধীনতা স্বীকার করেছেন বলে ধরে নেয়া হতো। আর যে রাজা ঘোরা আটক করতো তার সাথে যুদ্ধ হতো এবং জিতলে সাম্রাজ্য বিস্তার হতো|শাস্ত্র মতে প্রত্যেক যজ্ঞর রয়েছে নিদ্দিষ্ট বৈদিক মন্ত্র, নিদ্দিষ্ট কাঠ এবং বিশেষ উপাচার তাছাড়া যজ্ঞর সাফল্য নির্ভর করে কয়েকটি বিষয়ের উপর যেমন যজ্ঞের আগুন যেন নিভে না যায়,আহুতি-মন্ত্র শুদ্ধ উচ্চারণ করতে হবে,শুদ্ধ ঘী হতে হবে গরুর দুধের,প্রতিটা যজ্ঞের নির্দিষ্ট তিথি নক্ষত্র আছে,সে খেয়াল রাখতে হবে।যদি যজ্ঞ সঠিক নিয়ম মেনে হয় এবং সফল হয় সেক্ষেত্রে উদ্দেশ্য পূরণ অবশম্ভাবি এবং হোম শিখায় দিব্য রূপ দর্শনও অসম্ভব নয়|সদ্য ফিরেছি তারাপীঠে বকুল অমাবস্যায় হোম যজ্ঞ সেরে |তার রেশ কিছুটা টিকিয়ে রেখে আজ হোম যজ্ঞ নিয়ে কিছু গুরুত্বপূর্ণ কথা বলার চেষ্টা করলাম|জানাবেন কিরকম লাগলো |ভালো থাকুন |ধন্যবাদ |