পুরান রহস্য – ভীষ্ম অষ্টমী

205

পুরান ও সনাতন ধর্ম শাস্ত্রের কিছু রহস্য, কিছু অজানা তথ্য আপনাদের সামনে আনতে শুরু করেছিলাম পুরান রহস্য শীর্ষক এই ধারাবাহিক লেখা আজ আমাদের মহাকাব্যে উল্লেখিত একটি বিশেষ ঘটনার কথা বলবো যা ঘটেছিলো আজকের দিনে এবং সেই ঘটনাকে উৎসর্গ করেই আজকের দিনের নামকরণ, আজ ভীষ্ম অষ্টমী|আজকের দিনে প্রান ত্যাগ করেছিলেন ভীষ্ম|

মহাভারত অনুসারে মহারাজ শান্তনু এবং গঙ্গার পুত্র ছিলেন ভীষ্ম। নিজের শপথ রাখতে সিংহাসনের মোহ ত্যাগ করেছিলেন তিনি। এমনকি কোনও দিন তিনি বিবাহ করবেন না বলেও প্রতিশ্র‌ুতিবদ্ধ হন, তাই আজীবন অকৃতদার, এই ভীষণ প্রতিজ্ঞা করার জন্য সিদ্ধার্থ ভীষ্ম নামে পরিচিত হন, ভীষ্ম স্বেচ্ছামৃত্যুর আশীর্বাদ পেয়েছিলেন, অর্থাৎ তিনি যেদিন চাইবেন সেদিন তার মৃত্যু হবে|

কুরুক্ষেত্র যুদ্ধে সারা শরীরে অজস্র বাণ নিক্ষেপ করে ভীষ্মকে শরশয্যায় শায়িত করে দেন অর্জুন।
ভীষ্ম যখন শরশয্যায় শায়িত হয়েছিলেন তখন সূর্যের দক্ষিণায়ন চলছিল। তিনি প্রাণত্যাগের জন্য উত্তরায়ন পর্যন্ত অপেক্ষা করার সিদ্ধান্ত নেন। মাঘ শুক্লা অষ্টমীর সময় সূর্যের উত্তরায়ন শুরু হয়ে যায় এবং তিনি স্বেচ্ছায় নিজের প্রান ত্যাগ করেন|

দেশের নানা স্থানে এই দিন ভীষ্মর ত্যাগ ও বীরত্ব কে স্মরণ করে তাকে শ্রদ্ধা জানানো হয়, কোথাও কোথাও পূর্বপুরুষের উদ্দেশ্যে তর্পনের রীতিও রয়েছে|আপনারও এই মহান যোদ্ধা ও ত্যাগী মহাত্মাকে শ্রদ্ধা জানাতে পারেন নিজের মতো করে|

আজ লেখা এখানেই শেষ করলাম, পরের পর্বে দেখা হবে, জ্যোতিষ মতে ভাগ্যগণনা হোক বা সমস্যার সমাধান, চাইলে উল্লেখিত নাম্বারে যোগাযোগ করতে পারেন|ভালো থাকুন|ধন্যবাদ|