কলকাতার কালী – ব্রহ্মময়ী কালী মন্দির

622

My documents, [18.10.20 08:37]
কলকাতার কালী – ব্রহ্মময়ী কালী মন্দির

পন্ডিতজি ভৃগুর শ্রীজাতক

অনেকেই হয়তো ভাবছেন এই কলকাতার কালী শীর্ষক ধারাবাহিক লেখনীর পর্ব গুলিতে আমি এখনো কেনো কালীঘাট বা দক্ষিনেশ্বর নিয়ে লিখলাম না|আসলে শক্তি পীঠ পর্ব গুলির মধ্যে ইতিমধ্যে কালী ঘাট নিয়ে দুটি বিশেষ পর্বে লেখা হয়ে গেছে এবং দক্ষিনেশ্বর নিয়েও কয়েকটি পর্বে একটি বিশেষ লেখা আগেও লিখেছি|যারা পড়েন নি অনুগ্রহ করে আমার ফেসবুক প্রোফাইলে বা ওয়েবসাইটে লেখাগুলি খুঁজে পড়তে পারেন|এই কলকাতার কালী পর্ব গুলিতে কলকাতা ও পার্শবর্তী অঞ্চলের সেই অর্থে কম প্রচারিত কিছু প্রসিদ্ধ এবং জাগ্রত কালী মন্দিরের কথা আমি আপনাদের সামনে তুলে ধরছি|আজকের পর্বে ব্রহ্মময়ী কালী মন্দির|

উত্তর চব্বিশ পরগনার শ্যামনগর স্টেশনের কাছেই রয়েছে একটি প্রাচীন গ্রাম যার নাম মুলজোড়া|এই গ্রামেই অবস্থিত প্রসিদ্ধ ব্রহ্মময়ী কালী মন্দির|
অবশ্য এই মন্দির প্রতিষ্ঠা করেছিলেন কলকাতার পাথুরিয়াঘাটার জমিদার গোপীমোহন ঠাকুর|এই মন্দির প্রতিষ্ঠার সাথে জড়িত আছে এক অলৌকিক কাহিনী|

প্রাচীন জনশ্রুতি অনুসারে গোপীমোহন ঠাকুরের মেয়ের নাম ছিল ব্রহ্মময়ী|মেয়ের যখন নয় বছর বয়েস তখন তার বিবাহের দিন নির্ধারিত হয়|বিবাহের দিন ব্রহ্মময়ী প্রথা অনুসারে গঙ্গাস্নানে গিয়ে হঠাৎই ডুবে যায় গঙ্গার জলে|অনেক খোঁজা খুঁজির পরেও তাকে আর পাওয়া যায় না|পড়ে দেখা যায় কলকাতার গঙ্গাঘাট থেকে স্রোতের টানে শবদেহ ভেসে এসেছে মূলাজোড়ের ঘাটে|

সেই রাতেই দেবী গোপীমোহনকে স্বপ্নাদেশ দেন যে তিনি স্বয়ং তার গৃহে এতদিন ব্রহ্মময়ী রূপে ছিলেন এবং গোপী মোহন যেনো শোক ভুলে মূলাজোড়ে ‘ব্রহ্মময়ী’ নামে একটি কালীমন্দির প্রতিষ্ঠা করেন|দেবীর আদেশ গোপীমোহন অক্ষরে অক্ষরে পালন করেন|প্রতিষ্ঠিত হয় এই ব্রহ্মময়ী কালী মন্দির ও কন্যা জ্ঞানে ব্রহ্মময়ীর পূজা শুরু হয়|সেই পুজো চলে আসছে আজও|

ভাগীরথী তীরে অবস্থিত কালী মন্দিরটি নবরত্ন শিল্পশৈলীতে নির্মিত রয়েছে উদ্যান ও ১২টি শিবমন্দি|মন্দিরের গর্ভগৃহে প্রতিষ্ঠিত দেবী বিগ্রহটি কালোপাথরের নির্মিত যা উচ্চতায় প্রায় ফুট তিনেক|দেবী এখানে স্বর্ণালঙ্কারভূষিতা ও সবসনা|দেবী এখানে প্রসন্ন মুখমণ্ডলে বিরাজিতা ও ঘরের মেয়ে রূপে পূজিতা হন|

প্রতি অমাবস্যায় ও রটন্তী-চতুর্দশীতে বিশেষ কালীপূজা হয় এখানে এছাড়াও গোটা পৌষমাস ব্যাপী এখানে উৎসব হয় যা দেখতে আসেন অসংখ্য মানুষ|

আজকের পর্ব এখানেই শেষ করছি|তবে যাওয়ার আগে আরো একবার মনে করিয়ে দিয়ে যাই সামনেই কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ তিথি রয়েছে|যারা এই সময়ে জ্যোতিষ পরামর্শ বা শাস্ত্র মতে গ্রহদোষ খণ্ডন করাতে চান তারা নির্দ্বিধায় যোগাযোগ করুন উল্লেখিত নাম্বারে|ভালো থাকুন|ধন্যবাদ|