শক্তি পীঠ – বৃন্দাবন

270

কিছুকাল আগে আপনাদের ইচ্ছায় ও উৎসাহে শুরু করেছিলেন শক্তি পীঠ নিয়ে লেখা লেখি, মাঝ খানে আরো অনেক কিছু নিয়েই লিখতে হয়েছে, আগামী দিনেও চলবে|তবে খেয়াল করে দেখলাম বেশ দীর্ঘ সময় হয়ে গেলো নতুন কোনো শক্তি পীঠ পর্ব নিয়ে আপনাদের সামনে আসা হয়নি|আজ আর দেরি না করে চলে এসেছি একটি বিশেষ শক্তি পীঠের কথা নিয়ে|আজ লিখবো একান্ন শক্তি পীঠের অন্যতম শক্তি পীঠ বৃন্দাবন নিয়ে|

বৃন্দাবন বলতেই মনে আসে বৈষ্ণব সম্প্রদায়, রাধা কৃষ্ণের আরাধনা, গোপীনি দের রাশ লীলা, হরিনাম সংকীর্তন ইত্যাদি|এতো কিছুর মাঝে, এই বৃন্দাবনের পবিত্র ভূমিতেই রয়েছে শক্তি পীঠ কাত্যায়নী দেবীর মন্দির দেবী উমা বা যোগমায়া নামেও পরিচিত|দেবীর ভৈরব হিসেবে এই স্থানে পূজিত হন ভূতেশ|

সুদর্শন চক্রে খণ্ডিত দেবীর শরীরের কোন অংশ এই বিশেষ স্থানে পতিত হয়েছিলো তা নিয়ে দুটি ভিন্ন মত রয়েছে|একটি মত অনুসারে এখানে দেবী সতীর কেশ রাশি পড়েছিলো আর দ্বিতীয় মত অনুসারে এই স্থানে পড়েছিলো দেবীর আংটি|এই বিতর্ক যুগ যুগ ধরে চলে আসছে এবং হয়তো এর কোনো শেষ নেই|

দেবীর নবদূর্গা রূপের একটি রূপ এই কাত্যায়নী|
দেবীর মন্দিরেটি অবস্থিত বৃন্দাবনের কেশী ঘাটে যা নব 1923 সালে নবরূপে নির্মান করান যোগীরাজ স্বামী কেশবানন্দ|এই মন্দিরে দেবী মূর্তির পাশাপাশি রয়েছে একটি প্রাচীন তলোয়ার যার নাম উচ্ছল চন্দ্রহাস|দেবীর ভৈরব অর্থাৎ ভুতেশ্বর মহাদেবের মন্দিরটি রয়েছে বৃন্দাবনের ভুতেশ্বর রোডের কাছে|

ভক্ত রা বিশ্বাস করেন দেবী উমার পূজা করলে ভয়, শোক, দুক্ষ এবং ক্রোধ দূর হয়|মনে শান্তি ও শক্তির সঞ্চার হয়|ভাগবত পুরান অনুসারে গোপিনীরা কৃষ্ণকে পাওয়ার আশায় সারা মাঘ মাস জুড়ে কাত্যায়নী ব্রত পালন করতেন এবং এই সময়ে তারা প্রতিদিন যমুনায় স্নান করে যমুনা নদীর মাটি দিয়ে দেবী মূর্তি গড়ে নিষ্ঠা সহকারে বিধিসম্মত ভাবে দেবীর পূজা করতেন|

বৃন্দাবনে অবস্থিত এই শক্তি পীঠ ভক্ত দের কাছে বেশ জনপ্ৰিয়|তীর্থে আশা বহু মানুষ এই পীঠ দর্শন করেন, পূজা দেন ও দেবীর আশীর্বাদ নেন|আপনারাও চাইলে মথুরা বা বৃন্দাবন ভ্রমণকালে একবার দর্শন করতে পারেন দেবীর|

আজকের মত এই পর্ব এখানেই শেষ করছি|আগামী পর্বে নিয়ে আসবো অন্যকোনো শক্তি পীঠের কথা|আপনাদের জানিয়ে রাখি যারা মা হৃদয়েশ্বরী সর্বমঙ্গলা মন্দিরের সাথে যুক্ত হতে চান সরাসরি উল্লেখিত নাম্বারে যোগাযোগ করে আমার সাথে কথা বলতে পারেন|প্রায় প্রতিটি বিশেষ তিথিতে মায়ের মন্দিরে বিশেষ পূজা, গ্রহ দোষ খণ্ডন ও ভোগ বিতরনের সু ব্যবস্থা থাকে|আসুন, মা সর্বমঙ্গলা আপনাদের মঙ্গল করবেন|ভালো থাকুন |ধন্যবাদ|