বাংলার কালী – অর্ধকালীর পুজো

15

শাস্ত্রে যতগুলি মাকালীর রূপের উল্লেখ আছে যেমন ভদ্র কালী, দক্ষিনা কালী ইত্যাদি তার বাইরেও বাংলায় নানা রূপে পূজিতা হন দেবী কালী। কোথাও তিনি সাদা কালী, কোথাও আবার ব্যাঘ্র কালী। এই প্রতিটি রূপের সাথে জড়িয়ে আছে কিছু ইতিহাস কিছু অলৌকিক ঘটনা আজ এমনই এক কালী পুজোর কথা জানাবো ।

 

আজ থেকে প্রায় ছশো বছর আগে

অবিভক্ত বাংলার ময়মনসিংহের প্ৰখ্যাত কালীসাধক দ্বিজদেব নিজের নিঃসন্তান অবস্থা ঘোচানোর জন্য তার আরাধ্যা দেবী কালীর কাছে প্রার্থনা করেন।দীর্ঘ সময় ধরে প্রার্থনা করার পরে তার ডাকে সাড়া দেন মা কালী এক রাতে তিনি স্বপ্ন দেখলেন তাঁর পরমারাধ্যা তাঁর কাছে কন্যারূপে আসবেন। যথা সময়ে সন্তান সম্ভবা হলেন তার স্ত্রী এবং এক মাঘী পূর্ণিমার দিন এক কন্যা সন্তান ভূমিষ্ঠ হল। লোকমুখে শোনা যায় বিচিত্র ছিলো সেই কন্যা সন্তানের রূপ। সে না পুরোপুরি গৌরাঙ্গী আবার না সম্পূর্ণ শ্যামাঙ্গী। তার দেহের অর্ধেক গৌরবর্ণা আর বাকি অর্ধ ঘন শ্যামবর্ণা ।

 

তিনি আদর করে কন্যার নাম দিলেন জয়দুর্গা। তবে নিজে কন্যাকে অর্ধকালী বলে ডাকতেন। আসলে এই কন্যা কোনো সাধারণ কন্যা নন। তিনি বিশ্বাস করতেন এই কন্যা দেবী কালীর মানবী রূপ

এবং দেবী রূপেই তাকে মনে মনে ভক্তি করতেন।

 

কন্যা বড় হয়ে বিবাহযোগ্যা হলে দ্বিজ ঠাকুরের টোলের শিষ্য রাঘবরাম ভট্টাচার্যর সাথে জয় দুর্গার বিবাহ হয়। রাঘবরাম ভট্টাচার্য তন্ত্র জ্যোতিষ

চর্চা করতেন এবং পরবর্তীতে মাতৃ সাধক রূপে বিশেষ খ্যাতি অর্জন করেছিলেন।

 

বিবাহ পরবর্তী জীবনেও জয় দূর্গা বা

অর্ধকালীকে কেন্দ্র করে একাধিক অলৌকিক ঘটনার উল্লেখ পাওয়া যায়।শোনা যায় একবার নব বধূর ঘোমটা জন সমক্ষে পড়ে যাওয়ায় তৎক্ষণাৎ এক জোড়া অদৃশ্য হাত সেই ঘোমটা আবার স্বস্থানে বসিয়ে দেয় যা দেখে হতবাক হায্য সবাই আবার একবার তাদের গৃহে কোনো এক কারণে দূর্গাপুজোর সময়ে চন্ডী পাঠ থেকে বিরত থাকেন সেই সময় তাদের কুল দেবী দুর্গা দক্ষিণমুখী

থেকে ঘুরে পশ্চিমমুখী হন আর কাঁচা হলুদ বর্ণা দেবী ক্রুদ্ধ রক্তবর্ণা রূপ ধারণ করেন।আজও নাকি অর্ধকাকালীর পরিবারের এই রূপেই

দেবীর পুজো হয়। হয়না চন্ডী পাঠ।

আজও এখানে পরম্পরা মেনে মৃন্ময়ী দুর্গাপূজা হয় শারদীয়া দুর্গা পুজোয় আর মাতা অর্ধকালীকে স্মরণ করা হয় গৃহদেবী রূপে।

 

ফিরে আসবো পরবর্তী পর্বে। থাকবে বাংলার অন্য এক ঐতিহাসিক কালী পুজো নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা। পড়তে থাকুন।

ভালো থাকুন। ধন্যবাদ।