শ্রাবন মাসে রাশি অনুসারে রুদ্রাক্ষর প্রয়োগ

126

পন্ডিতজি ভৃগুশ্রী জাতক

শ্রাবন মাস যেমন শিবের প্ৰিয় মাস তেমনই শিবের অত্যান্ত প্ৰিয় একটি উপাদান হলো রুদ্রাক্ষ যা কিনা শিবেরই অংশ।জ্যোতিষ শাস্ত্র মতে রত্নের ন্যায় প্রতিটি গ্রহের নিজস্ব রুদ্রাক্ষ আছে তাই স্বাভাবিক ভাবেই রাশি ও লগ্ন সাপেক্ষে রুদ্রাক্ষ ধারণ করলে অধিক ভালো ফল লাভ হয়। শুধু ধারণ করা নয় বাস্তু শাস্ত্রে এবং বিভিন্ন টোটকা বা উপাচারেও রুদ্রাক্ষ ব্যাবহার হয়। আজকের পর্বে আসুন জেনে নিই এই শ্রাবন মাসে কে কোন রুদ্রাক্ষ কি ভাবে ব্যাবহার করলে কি ফল পাবেন।

মেষ এবং বৃশ্চিক রাশির বা লগ্নের জাতক জাতিকা দের জন্য ৩ মুখী রুদ্রাক্ষ বিশেষ শুভ। আপনারা শ্রাবন মাসে শিব লিঙ্গে এই রুদ্রাক্ষ নিবেদন করে ধারণ বা গৃহে স্থাপন করতে পারেন এতে আপনাদের মনোস্কামনা দ্রুত পূর্ণ হবে।

বৃষ এবং তুলা রাশির বা লগ্নের জাতক জাতিকাদের জন্য ৬ মুখী রুদ্রাক্ষ অত্যাত্ন শুভ গ্রহগত যেকোনো দোষ দূর করতে আপনারা এই রুদ্রাক্ষ শ্রাবনের যেকোনো শুক্রবার শিব লিঙ্গে অর্পণ করুন।

যাদের মিথুন এবং কন্যা রাশি সেই সব জাতক-জাতিকারা ৪ মুখী রুদ্রাক্ষের মালা শিব লিঙ্গে অর্পণ করে সবুজ কাপড়ে মুড়ে ক্যাশ বাক্সে রাখুন এতে আপনাদের অর্থ কষ্ট দূর হবে।

কর্কট রাশির এবং লগ্নের জাতক-জাতিকারা ২ মুখী রুদ্রাক্ষ শ্রাবন মাসের যেকোনো সোমবার শিব লিঙ্গে স্পর্শ করিয়ে এবং গঙ্গা জল ও দুধ দিয়ে স্নান করিয়ে ধারণ করুন বা কাছে রাখুন এতে অবসাদ দূর হয় মানসিক শান্তি আসে।

সিংহ রাশির জাতক জাতিকারা ১ মুখী রুদ্রাক্ষ শিব লিঙ্গে অর্পণ করুন এবং ওম নমঃ শিবায় জপ করুন তারপর লাল সুতোয় ধারণ করতে পারেন। বাস্তু দোষ দূর করতে প্রধান দরজায় ও স্থাপন করতে পারেন এতে সুখ ও সমৃদ্ধি আসবে।

ধনু ও মীন রাশির জাতকরা ৫মুখী রুদ্রাক্ষ শিব লিঙ্গে অর্পন করে মহা মৃত্যুঞ্জয় মন্ত্র পাঠ করুন। পরে রুদ্রাক্ষটি গৃহ মন্দিরে স্থাপন করুন।
এতে রোগ ভোগ আপনাদের থেকে দূরে থাকবে।

মকর ও কুম্ভ রাশির বা লগ্নের জাতক জাতিকারা ৭ মুখী রুদ্রাক্ষ শনি মন্দিরে দান করুন এতে গ্রহ রাজ আপনাদের উপর প্রসন্ন হবেন এবং জীবনে সাফল্য আসবে।

ফিরে আসবো আগামী পর্বে। শ্রাবন মাস জুড়ে থাকবে এমনই সব গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়ে আলোচনা। পড়তে থাকুন।
ভালো থাকুন।ধন্যবাদ।