রাম নবমীর শুভেচ্ছা

138

আজ রাম নবমী।ত্রেতা যুগে রাম ভগবান বিষ্ণুর সপ্তম অবতার রূপে জণ্মে ছিলেন|তার জন্ম এই
চৈত্র মাসের শুক্লপক্ষের নবমী তিথিতে। তাই আজকের দিনটি প্রতি বছর পালিত হয় রামনবমী রূপে। রাম নবমী পালন করার মূল উদ্দেশ্য হল অধর্মকে নিক্ষেপ করে ধর্মকে স্থাপন করা।

সনাতন ধর্মাবলম্বীদের অন্যতম উৎসব রাম নবমী অনান্য রাজ্যের তুলনায় উত্তর ভারতে অনেক বেশি জনপ্রিয়। তবে বাংলাতেও এখন রাম নবমী বেশ বড় করে উদযাপন হচ্ছে। ভারত ছাড়া
নেপাল ও দক্ষিণ এশিয়ার বহু দেশে রাম পূজা প্রচলিত আছে।

পুরাণ মতে ‘রমন্তে সর্বত্র ইতি রাম’ যার অর্থ রাম সব জায়গায় আছেন। হিন্দু ধর্মগ্রন্থতে তাঁকে অযোধ্যার রাজা বলা হয়েছে। পুরাণ অনুযায়ী, রামকে আদর্শ মানুষ মনে করা হয়। তিনি বাবার সম্মান রক্ষার জন্য সিংহাসনের অধিকার ছেড়ে দিয়ে চৌদ্দ বছরের জন্য বনে গিয়েছিলেন। তাঁর স্ত্রী সীতা ও ভাই লক্ষ্মণ তাঁর বিচ্ছেদ সহ্য করতে পারবেন না বলে তাঁরাও রামের সঙ্গে বনবাসে যান। বনবাসের সময় লঙ্কার রাজা রাবণ সীতাকে হরণ করে লঙ্কায় নিয়ে যান। এরপর রাম এবং রাবণের মধ্যে যুদ্ধ বাঁধে। যুদ্ধে রাবণ পরাজিত হন। রাম সীতাকে উদ্ধার করে অযোধ্যায় ফিরে আসেন। সেখানে তার রাজ্যাভিষেক হয়। পরে তিনি সম্রাট হন।এই পৌরাণিক ঘটনাবলী আমরা প্রায় সবাই কম বেশি জানি।

তবে আরো বৃহত্তর অর্থে রাম হলেন পবিত্রতা ও রাজ ধর্মের প্রতীক তাঁর রাজত্বকালে প্রজারা সুখে, শান্তিতে বাস করত। প্রজারা ন্যায়বিচার পেতেন। যে জন্য রামের শাসনের অনুসরণে সুশাসিত রাজ্যকে “রামরাজ্য” বলার প্রবণতা চালু হয়।শুধু মাত্র একজন প্রজার সন্দেহ কে প্রাধান্য দিয়ে যিনি নিজের সহধর্মিনীকে অগ্নি পরীক্ষার মধ্যে দিয়ে যেতে দেন তিনি হলেন রাম। তার কাছে উঁচু নিচু ধনী গরিব সবই এক।

রাম নবমীর দিনটিতে রাম কথার বর্ণনা করে
এবং রাম কাহিনী পড়ে পালন করা হয়। অনেকে মন্দিরে যান।অনেকে বাড়িতে রামের মূর্তিতে পূজা করেন। রাম নবমী পালন করার মূল উদ্দেশ্য অধর্মকে বিনাশ করে ধর্মকে প্রতিষ্ঠা করা।এই দিন রাম চরিত মানস বা রাময়ন পাঠ করলে কর্ম ফল থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

শাস্ত্র মতে কলি যুগে পাপ তাপ থেকে বাঁচতে নিরন্তর রাম নাম নেয়ার কোনো বিকল্প নেই।
প্রভু রামের পুজো করলে খ্যাতি এবং সৌভাগ্য আসে। জীবনে সুখ এবং সমৃদ্ধি থাকে এবং সমস্ত কাজ  বিনা বাধায় সম্পন্ন হয়।

সবাইকে জানাই রাম নবমীর অসংখ্য শুভেচ্ছা এবং আন্তরিক অভিনন্দন। ফিরে আসবো পরের পর্বে ধারাবাহিক আধ্যাত্মিক আলোচনা নিয়ে। পড়তে থাকুন।ভালো থাকুন। ধন্যবাদ।