নবদূর্গার পঞ্চম রূপ – দেবী স্কন্দমাতা

46

নবরাত্রির পঞ্চম দিনে দেবী স্কন্দ মাতার পূজা করা হয়।ভগবান শিব এবং দেবী পার্বতীর পুত্র কার্তিকের আরেক নাম স্কন্দ তাই স্কন্দমাতা পার্বতীজির অপর নাম। দেবী স্কন্দমাতা শিশু স্কন্দকে কোলে নিয়ে থাকেন । দেবী চতুর্ভুজা এক হাতে সে স্কন্দকে ধরে রেখেছে। যেখানে অন্য দুটি হাতে তিনি দুটি পদ্ম ধারণ করেন এবং তার চতুর্থ হাতটি আশীর্বাদ দেয়ার জন্য ব্যাবহিত হয়|হিন্দু পুরাণ অনুযায়ী, দেবী স্কন্দমাতা আগুনের দেবী।স্বেত বর্ণের দেবী একটি পদ্মের উপর উপবিষ্ট। তিনি তার ভক্তদের অমূল্য জ্ঞান দান করেন।যারা নবরাত্রির পঞ্চম দিনে বাড়িতে স্কন্দমাতার পুজো করবেন তারপর প্রথমে গঙ্গাজল দিয়ে গৃহ শুদ্ধ করুন। একটি রৌপ্য, তামা বা মাটির পাত্রে নারকেল রেখে একটি কলস স্থাপন করুন। এরপর শ্রীগণেশ, বরুণ, নবগ্রহ, ষোড়শ মাতৃকা,সাতটি সিন্দুর বিন্দু স্থাপন করুন। তারপর বৈদিক ও সপ্তশতী মন্ত্রের মাধ্যমে স্কন্দমাতা ও ষোড়শপচার সহ সমস্ত প্রতিষ্ঠিত দেবতার পূজা করুন। এর মধ্যে রয়েছে আবাহন, আসন, পদ্য, আরাধ্যা, আচমন, স্নান, পোশাক, সৌভাগ্য সূত্র, চন্দন, রোলি, হলুদ, সিঁদুর, দূর্বা, বিল্বপত্র, গহনা, ফুলের মালা, সুগন্ধি মদ, ধূপ-প্রদীপ, নৈবেদ্য, পাণুবিদ্য, ফল। দক্ষিণা। , আরতি, প্রদক্ষিণা, মন্ত্র পুষ্পাঞ্জলি ইত্যাদির পর প্রসাদ বিতরণ করে পূজা করা।পুজোর সময় মাতৃদেবীর এই মন্ত্রটি ১১ বার জপ করা উচিত। স্কন্দমাতার এই মন্ত্রটি জপ করলে আপনার বাড়িতেও সুখ শান্তি ও সমৃদ্ধি বিরাজ করবে।যা দেবী সর্বভূতেষু মা স্কন্দমাতা রূপেন সংস্থা।নমস্তস্য নমস্তস্য নমস্তস্য নমো নমঃ।।পুজোর দিনে নীল বর্নের পোশাক পরিধান করা উচিত এবং কলা নিবেদন করে মাতাকে তুষ্ট করা উচিত। এই দিনে দুর্গা সপ্তশতী কথার সপ্তম অধ্যায় পাঠ করা উচিত। মা স্কন্দমাতা তাঁর ভক্তদের প্রতি অগাধ ভালবাসা ও ভক্তি বর্ষণ করেন। একজন সত্যিকারের ভক্তি সহকারে তার কাছে প্রার্থনা করা উচিত।ফিরে আসবো পরের পর্বে দেবীর পরবর্তী রূপ নিয়ে|পড়তে থাকুন|ভালো থাকুন|ধন্যবাদ|