দারিদ্র যোগ থাকলে সাবধান

50

যুগ যুগ ধরে জ্যোতিষ ও তন্ত্র শাস্ত্রে কৌশিকী অমাবস্যা তিথির গুরুত্ব অপরিসীম|শাস্ত্র মতে গ্রহ দোষ খন্ডনের ক্ষেত্রে এই অমাবস্যা তিথি শ্রেষ্ট তিথি| আজকের পর্বে ব্যাখ্যা করবো জ্যোতিষ ও তন্ত্র জগতে কেনো অমাবস্যা এতো গুরুত্বপূর্ণ পাশাপাশি একটি অশুভ যোগ দারিদ্র যোগ নিয়ে আলোচনা করবো|প্রথমে জানা দরকার এই অমাবস্যা তিথি কি|শুক্লপক্ষ এবং কৃষ্ণপক্ষ এক মাসের দুটি অংশ রয়েছে। শুক্লপক্ষে চন্দ্রের শিল্পকলা বৃদ্ধি পায় অর্থাৎ চন্দ্র বৃদ্ধি পায়। কৃষ্ণপক্ষের চন্দ্র বক্ররেখা এবং অমাবস্যায় সম্পূর্ণ অদৃশ্য হয়ে যায়। চাঁদের ষোলটি কলার মধ্যে ষোড়শ শিল্পকে অমা বলা হয়। তাই এই তিথি অমাবস্যা নামে পরিচিত।যে অমাবস্যা তিথিতে দেবী কৌশিকী আবীরভূতা হয়েছিলেন তাকেই আমরা কৌশিকী অমাবস্যা বলি|কৌশিকী অমাবস্যা তিথিতে অশুভ শক্তি শুভ শক্তির সামনে পরাজিত হয়|এবার আসুন দারিদ্র যোগ কি|যদি কোনও জন্মছকে রবি ও শুক্র খুব কাছাকাছি বা একই ভাবে অবস্থান করে, তা হলে দারিদ্র যোগ সৃষ্টি হয়। আবার লগ্নের দশমে, রবির একাদশে, চন্দ্রের অষ্টমে কোনও গ্রহ না থাকলেও এই যোগ সৃষ্টি হয়ে থাকে। এই দারিদ্র যোগ যদি কোনও জন্মছকে থাকে, তা হলে একটি মানুষের সমগ্র জীবনে অত্যন্ত যন্ত্রণা ভোগ করতে হয়। অভাব অনটন প্রায় সময়েই জাতককে তাড়িয়ে বেড়ায়। এই যোগ থাকলে কখনওই সহজে আর্থিক উন্নতি হবে না।স্বচ্ছলতা যেমন মানুষের জীবনে আশির্বাদ, ঠিক তেমন দারিদ্র মানুষের জীবনে অভিশাপ। এই অভিশাপ থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য কত মানুষ কত কী করেন। কিন্তু সঠিক সময়ে সঠিক উপায়টি না করলে কখনওই এর হাত থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে না। অবশ্য দারিদ্র যোগ মানেই যে আর্থিক দারিদ্রতা হতে হবে তা নয়|দারিদ্র যোগ কোন ভাবে সৃষ্টি হচ্ছে তার উপর নির্ভর করে এর ফল|দারিদ্র যোগের ফলে শিক্ষা জীবন ব্যার্থ হতে পারে|শরীর খারাপ হতে পারে|দাম্পটি জীবনে সমস্যা দেখা দিতে পারে|অর্থাৎ যেভাবেই হোক দারিদ্র যোগের প্রতিকার দরকার|সেক্ষেত্রে শাস্ত্র মতে কৌশিকী অমাবস্যা সর্ব শ্রেষ্ট তিথি|আগামী কৌশিকী অমাবস্যায়যারা আপনাদের মা হৃদয়েশ্বরী সর্বমঙ্গলা মন্দিরে বিষ যোগ, গ্রহণ দোষ, কাল সর্প দোষ , গুরু চণ্ডাল দোষ , পিতৃ দোষ, দারিদ্র যোগ ইত্যাদি ভয়াবহ দোষগুলি খণ্ডন করাতে চান যোগাযোগ করুন|আগামী পর্বে কৌশিকী অমাবস্যা ও অন্য একটিঅশুভ যোগ নিয়ে আবার ফিরে আসবো|পড়তে থাকুন|ভালো থাকুন|ধন্যবাদ|