দেবতাদের অস্ত্র শস্ত্র – খড়গ

185

সামনেই আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ তিথি অম্বুবাচী, এই তিথিতে তন্ত্রে ও জ্যোতিষ জগতের বহু গুরুত্বপূর্ণ কাজ পূর্ণতা পায়|যদিও শাস্ত্র মতে এই সময়ে একটি বিশেষ কারনে কয়েকটিদিন দেবীর পুজো বন্ধ থাকে কিন্তু কামাখ্যা তারাপীঠ সহ একাধিক স্থানে অসংখ্য তান্ত্রিক ও জ্যোতিষীরা সমবেত হন, বিশেষ যজ্ঞ ও পুজো পাঠের মাধ্যমে গ্রহদোষ খণ্ডন ও হয়|এবছর মা হৃদয়েশ্বরী সর্বমঙ্গলার মন্দিরেও বিশেষ পুজো ও গ্রহদোষ খণ্ডনের ব্যবস্থা থাকবে|যাই হোক এবার আসি আজকের পর্বে|আজ লিখবো মা কালীর অস্ত্র খড়গ নিয়ে|

কাল-এর স্ত্রীলিঙ্গ কালী। কাল বলতে বোঝায় সময়। অর্থাৎ অতীত-বর্তমান ও ভবিষ্যতকে যিনি কলন করেন তিনি মহাকাল। আর সেই মহাকালের নিয়ন্ত্রক যিনি, তিনিই মহাকালী। এই কালী যে নরমুণ্ড মালা ধারন করেন তা আসলে মানুষের অহং ছিন্ন করার প্রতীক। তাঁর এক হাতে তাই অস্ত্র হিসেবে থাকে খড়গ এই খড়গ দিয়েই তিনি মানুষের যাবতীয় অহং কে সমাপ্ত করেন এবং প্রয়োজনে দুষ্টের দমন করেন|খড়গে আঁকা চোখ অনন্ত জ্ঞানের তথা প্রজ্ঞার প্রতীক।

শুধু কালী নয় রাবনের ও খড়গ ছিলো, সে নিয়ে একটি পৌরাণিক ঘটনাড় উল্লেখও করা যায় এই প্রসঙ্গে, সর্বক্ষণ শিবের সান্নিধ্য পাওয়ার লক্ষ্যে একবার রাবন কৈলাস পর্বতকে লংকায় প্রতিস্থাপনের জন্য নিজ তপোবলের দ্বারা দুই হস্তে তুলে নেন তখন মহাদেব তাঁর পায়ের বৃদ্ধাঙ্গুলি কৈলাসে স্পর্শ করলে রাবণের দুইহাত কৈলাসে চাপা পড়ে যায়। রাবণ তখন প্রচন্ড চিৎকার করতে থাকেন এবং শিবকে শান্ত করার নিমিত্তে একটি গীত রচনা করেন যা পরে “শিবতান্ডব স্ত্রোত্র” নাম পরিচিত হয়। শিবের ক্রোধ শান্ত হয় এবং মহাদেব রাবনকে চন্দ্রোহাস নামক একটি খড়গ উপহার দেন|

বাস্তু শাস্ত্র মতে দেবীর খড়গ যদি গৃহের প্রধান দরজাড় উপর রাখা যায় গ্রহের কল্যাণ হয় ও কোনো রকমের অশুভ শক্তি গৃহে প্রবেশ করতে পারেনা|আমাদের মহাকাব্য, পুরান, বেদ সহ একাধিক শাস্ত্রে অস্ত্র হিসেবে খড়গের উল্লেখ আছে, প্রাচীন সমরাস্ত্র হিসেবে খড়গ অত্যন্ত জনপ্রিয় ও কার্যকরী|আজও যেখানে যেখানে যেখানে বলীপ্রথা প্রচলিত আছে সেখানে বলীর অস্ত্র হিসেবে খড়গই ব্যবহার হয়|দেবীকে তুষ্ট করতে তার আশীর্বাদ পেতে অনেক ভক্ত আজও দেবীর উদ্দেশ্যে মূলবান খড়গ দান করে থাকে|এক কথায় দেবী কালীর অত্যন্ত প্ৰিয় তারপর খড়গ|

আগামী পর্বে আবার অন্য কোনো অস্ত্র নিয়ে লিখবো জানবো তার ব্যাখ্যা ও তার সাথে জড়িয়ে থাকা নানা পৌরাণিক কাহিনী|পড়তে থাকুন|জ্যোতিষ সংক্রান্ত প্রয়োজনে যোগাযোগ করুন উল্লেখিত নাম্বারে|ভালো থাকুন|ধন্যবাদ|